|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   কৃষি
  এবার ফুলকপি চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে
  09-11-2016

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি : আগাম জাতের ফুলকপিচাষিদের মুখে এবার হাসি ফুটেছে। চুয়াডাঙ্গায় এবার ফুলকপির ফলন যেমন ভালো হয়েছে, তেমনি দামও বেশ ভালো পাচ্ছেন চাষিরা।

 

স্থানীয় হাট-বাজারে গত বছর এই সময়ে ফুলকপি প্রতি মণ ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা দরে বিক্রি হলেও চলতি বছর তা ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে জেলায় শীতকালীন আগাম সবজি হিসেবে ১ হাজার ৩৭১ হেক্টর জমিতে ফুলকপির চাষ হয়েছে। ফুলকপির বাজারজাতও শুরু হয়েছে। স্থানীয় চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পাঠানো হচ্ছে এই ফুলকপি।

গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে জেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, খেত থেকেই পাইকারেরা ফুলকপি কিনে ট্রাকে করে নিয়ে যাচ্ছেন দেশের বিভিন্ন স্থানে। সদর উপজেলার গাইদঘাট গ্রামে একটি ফুলকপিখেতে দাঁড়িয়ে কথা হয় কৃষক আনোয়ার জোয়ারদারের সঙ্গে। আনোয়ার বলেন, এবার ২০ বিঘা জমিতে ফুলকপির চাষ করা হয়েছে। ফলনও বেশ ভালো। বিঘাপ্রতি ১৫ হাজার হিসেবে তাঁর মোট খরচ হয়েছে তিন লাখ টাকা। এ পর্যন্ত ১৪ বিঘা জমির ফুলকপি ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। এতে খরচ বাদে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা লাভ করেছেন তিনি। এখনো ছয় বিঘা জমির ফুলকপি বিক্রি বাকি আছে, যা বিক্রি করে কমপক্ষে আরও ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা লাভ করা সম্ভব।

আনোয়ার জোয়ারদার বলেন, এ বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হওয়ায় ফুলকপির ফলন ভালো হয়েছে। বাজারে চাহিদা থাকায় দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে।

গাইদঘাট গ্রামে ফুলকপি কিনতে এসেছেন মুন্সিগঞ্জের পাইকারি ব্যবসায়ী আলাউদ্দিন সাগর। তিনি চুয়াডাঙ্গা থেকে সবজি কিনে ঢাকার কারওয়ান বাজারের আড়তে বিক্রি করেন। আলাউদ্দিন বলেন, ‘২০ বছর ধরে সবজির ব্যবসা করছি। ঢাকার বাজারে চুয়াডাঙ্গার সবজির ভালো চাহিদা আছে। এখানকার সবজিচাষিরা প্রতিটি ফসল বেশ যত্ন করে ফলায়। এ কারণে অন্য এলাকার চেয়ে চুয়াডাঙ্গার সবজির দামও বেশি।’

সদর উপজেলার বেলগাছি গ্রামের ইসরাফিল হোসেন এবার পাঁচ বিঘা জমিতে ফুলকপির চাষ করেছেন। টানা দুই বছর লোকসানের পর এবার লাভের মুখ দেখেছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘গ্যালো দুইবার ফুলকপির আবাদ কইরে খুপ লুকসান হয়েলো। এবেড্ডা লাব না হলি মাটে মারা যাতাম।’

চুয়াডাঙ্গা বড় বাজারের সবজিপট্টির আড়তদার শাহ আলম বলেন, এ বছর চাষিরা ফুলকপিতে বিগত পাঁচ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দাম পেয়েছেন। প্রথম দিকে ফুলকপি ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। বর্তমানেও ভালো কপি ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চুয়াডাঙ্গার উপপরিচালক নির্মল কুমার দে বলেন, এবার আগাম জাতের ফুলকপির ফলন ভালো হওয়ায় ও দাম বেশি পাওয়ায় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 411        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     কৃষি
এসডিজি অর্জনের চালক হবে কৃষি
.............................................................................................
মাগুরায় গমের ভালো ফলনের আশা কৃষি বিভাগের
.............................................................................................
চলনবিল অঞ্চলে রসুন উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা দুই লাখ ৩২ হাজার টন
.............................................................................................
এবার ফুলকপি চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে
.............................................................................................
তারুণ্যের ছোঁয়ায় বদলে যাচ্ছে কৃষি
.............................................................................................
হেমন্ত মৌসুমে সালথায় উফশি আমন ধানের বাম্পার ফলন
.............................................................................................
আন্তর্জাতিক কৃষি কনফারেন্স উদ্বোধন করলেন রাষ্ট্রপতি
.............................................................................................
চাঁপাইনবাবগঞ্জে মাল্টা চাষে সাফল্য
.............................................................................................
কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনে অগ্রাধিকার দিচ্ছে সরকার
.............................................................................................
পশ্চিমের জেলাগুলোতে বাজার ঊর্ধ্বমুখী ধান চালের
.............................................................................................
টমেটো চাষীদের প্রশিক্ষণ দিল প্রাণ
.............................................................................................
১৩ হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট, চারা নিয়ে উদ্বিগ্ন কৃষক
.............................................................................................
ছয় মাস বেকার, ছয় মাস কৃষক
.............................................................................................
ভালোমানের সোনালী আঁশ ঘরে তুলতে যা করণীয়
.............................................................................................
মালটা চাষে সাফল্য
.............................................................................................
কৃষক সরকারিভাবে ধান বিক্রির সুফল পাচ্ছেন না
.............................................................................................
প্রযুক্তির ছোঁয়ায় বদলাচ্ছে কৃষি
.............................................................................................
খাদ্য অধিকার বিল সংসদে উথাপনের দাবি
.............................................................................................
রাঙ্গামাটিতে আনারসের বাম্পার ফলন
.............................................................................................
কৃষক বাঁচাও
.............................................................................................
পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার আমনা ধানের বাম্পার ফলন, কৃষকের মনে সংশয়
.............................................................................................
মৌসুমের শুরুতে শিমের বাজার চড়া থাকলেও এখন স্বাভাবিক- বেচাকেনার ধুম
.............................................................................................
এখন ভাত পেতে বেশি কষ্ট করতে হয় না, দেশ এখন স্বনির্ভরের পথে- কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী
.............................................................................................
সবজি চাষে বদলে যাচ্ছে খুলনাঞ্চলের কৃষকদের ভাগ্যের চিত্র
.............................................................................................
গ্রামের নারীরা পিছিয়ে পড়ার কারন জ্বালানি সংকট- কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
ছাদে পালং শাক চাষ করুন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো: হাবিবুর রহমান সিরাজ
আইন উপদেষ্টা : অ্যাড. কাজী নজিব উল্লাহ্ হিরু
সম্পাদক ও প্রকাশক : অ্যাডভোকেট মো: রাসেদ উদ্দিন
সহকারি সম্পাদক : বিশ্বজিৎ পাল
যুগ্ন সম্পাদক : মো: কামরুল হাসান রিপন
নির্বাহী সম্পাদক: মো: সিরাজুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : সাগর আহমেদ শাহীন

সম্পাদক কর্তৃক বি এস প্রিন্টিং প্রেস ৫২ / ২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সূত্রাপুর ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৯৯ মতিঝিল , করিম চেম্বার ৭ম তলা , রুম নং-৭০২ , ঢাকা থেকে প্রকাশিত ।
মোবাইল: ০১৭২৬-৮৯৬২৮৯, ০১৬৮৪-২৯৪০৮০ Web: www.dailybishowmanchitra.com
Email: news@dailybishowmanchitra.com, rashedcprs@yahoo.com
    2015 @ All Right Reserved By dailybishowmanchitra.com

Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD