|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
কালীগঞ্জে হাইওয়ে থানার করোনায় আক্রান্ত ১৬ পুলিশ

কালীগঞ্জে বারবাজার হাইওয়ে থানার ১৬জন পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সর্বশেষ শনিবার এক দিনেই ১০জনের করোনা পজেটিভ এসেছে। এর দু’সপ্তাহ আগে আরো ৬জন পুলিশ সদস্য করোনাতে আক্রান্ত হয়েছিল। এ নিয়ে সবমিলিয়ে হাইওয়ে থানার ৩৫জন পুলিশ সদস্যের মধ্যে এক অফিসারসহ ১৬জন করোনাতে আক্রান্ত হল। বর্তমানে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা খাতুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কালীগঞ্জ বারবাজার হাইওয়ে থানার ওসি মাহফুজুর রহমান জানান, করোনা মহামারিতে এ পর্ষন্ত তার থানায় কর্মরত ১৬জন পুলিশ সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছে। গত ২/৩ সপ্তাহ আগে তার থানার ৬জন পুলিশ সদস্য করোনা পরীক্ষা করে পজেটিভ আসে। এরপর গত সপ্তাহে বাকী পুলিশ সদস্যেদের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা পাঠালে শনিবার ১০ জনের করোনা পজেটিভ আসে। আক্রান্তদের আলাদা করে হোমকেয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যাবস্থা করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, সরকারি দায়িত্ব পালনে হাইওয়ে সড়কে ডিউটি করতে গিয়ে তারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যে হোমকেয়ারেন্টাইনে থাকা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের মধ্যে পরবর্তিতে ১ জনের করোনা নেগেটিভ এসেছে। বাকী পুলিশ সদস্যদের তাদের নিজ অফিসেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কালীগঞ্জে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য, ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, সরকারী কর্মকর্তা ও গনমাধ্যম কর্মীসহ এ পর্যন্ত ১২৪জন করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছে। এরমধ্যে ৩৮জন সুস্থ হয়েছেন। মারা গেছেন ৩জন।

 

 

 

 

 

 
কালীগঞ্জে হাইওয়ে থানার করোনায় আক্রান্ত ১৬ পুলিশ
                                  

কালীগঞ্জে বারবাজার হাইওয়ে থানার ১৬জন পুলিশ সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সর্বশেষ শনিবার এক দিনেই ১০জনের করোনা পজেটিভ এসেছে। এর দু’সপ্তাহ আগে আরো ৬জন পুলিশ সদস্য করোনাতে আক্রান্ত হয়েছিল। এ নিয়ে সবমিলিয়ে হাইওয়ে থানার ৩৫জন পুলিশ সদস্যের মধ্যে এক অফিসারসহ ১৬জন করোনাতে আক্রান্ত হল। বর্তমানে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডাঃ সেলিনা খাতুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কালীগঞ্জ বারবাজার হাইওয়ে থানার ওসি মাহফুজুর রহমান জানান, করোনা মহামারিতে এ পর্ষন্ত তার থানায় কর্মরত ১৬জন পুলিশ সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছে। গত ২/৩ সপ্তাহ আগে তার থানার ৬জন পুলিশ সদস্য করোনা পরীক্ষা করে পজেটিভ আসে। এরপর গত সপ্তাহে বাকী পুলিশ সদস্যেদের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা পাঠালে শনিবার ১০ জনের করোনা পজেটিভ আসে। আক্রান্তদের আলাদা করে হোমকেয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যাবস্থা করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, সরকারি দায়িত্ব পালনে হাইওয়ে সড়কে ডিউটি করতে গিয়ে তারা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যে হোমকেয়ারেন্টাইনে থাকা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের মধ্যে পরবর্তিতে ১ জনের করোনা নেগেটিভ এসেছে। বাকী পুলিশ সদস্যদের তাদের নিজ অফিসেই হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কালীগঞ্জে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য, ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, সরকারী কর্মকর্তা ও গনমাধ্যম কর্মীসহ এ পর্যন্ত ১২৪জন করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছে। এরমধ্যে ৩৮জন সুস্থ হয়েছেন। মারা গেছেন ৩জন।

 

 

 

 

 

 
ঈদ পর্যন্ত খাগড়াছড়ির সব পর্যটন স্পট বন্ধ
                                  

করোনার সংক্রমণ এড়াতে ঈদুল আজহা পর্যন্ত খাগড়াছড়ির সব পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

শনিবার রাতে খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সারা দেশেই করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। এই পরিস্থিতিতে সংক্রমিত এলাকা থেকে পর্যটকদের যাতায়াত বাড়লে জেলায় সংক্রমণ বাড়ার ঝুঁকি রয়েছে।

এ অবস্থায় ঈদুল আজহা পর্যন্ত খাগড়াছড়ির সব পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ থাকবে। সংক্রমণ রোধে এ সময় ভ্রমণকে নিরুৎসাহিত করা হবে।

প্রতি বছর ঈদ কেন্দ্র পাহাড়ি এই জনপদে প্রচুর পর্যটক ছুটে আসেন। জেলার প্রধান পর্যটন কেন্দ্র আলুটিলা গুহা, রিছাং ঝরনা, জেলা পরিষদ পার্কসহ চেনা-অচেনা পর্যটন কেন্দ্রে বিপুল পর্যটকের সমাগম ঘটে।

এ সময় হোটেল-মোটেল ব্যবসাও চাঙ্গা থাকে। তবে এবার ভিন্ন চিত্র। পর্যটক না থাকায় বন্ধ রয়েছে খাগড়াছড়ির সব হোটেল-মোটেল। মার্চের ৮ তারিখে দেশের করোনা শনাক্ত হওয়ার পর ১৮ মার্চ খাগড়াছড়ির সব পর্যটন কেন্দ্র অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।

একই সময় থেকে রাঙামাটির সাজেক পর্যটন কেন্দ্রও বন্ধ রয়েছে। ঈদেও খাগড়াছড়ি থেকে কোনো পর্যটকবাহী গাড়ি সাজেকে যাতায়াত করবে না।

দেশ জুড়ে প্রতারণার জাল সাহেদের
                                  

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদের প্রতারণার জাল কেবল স্বাস্থ্য খাত বা রাজধানীতেই সীমাবদ্ধ ছিল না। দেশব্যাপী বিস্তৃত ছিল তার প্রতারণার জাল। চাকরি দেওয়ার নামে হাজারো মানুষের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাত্ করেছেন। মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসায় করে গ্রাহকের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। তার ছিল নিজস্ব টর্চার সেল এবং ৩০ সদস্যের নারী বাহিনীও। পাওনা টাকা চাইতে এলেই করা হতো নির্যাতন। প্রতারণা মামলায় জেলও খেটেছিলেন তিনি। অনেক মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কিন্তু তার নাগাল পায়নি কেউ। কারণ সবকিছু ম্যানেজ করতেন টাকা দিয়ে ও সুন্দরী নারী দিয়ে মনোরঞ্জনের মাধ্যম। নিজেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বড় কর্তা বা মন্ত্রী-এমপির সহযোগী পরিচয়ে সারা দেশেই চালিয়েছেন রমরমা প্রতারণা বাণিজ্য। ঢাকার বাইরে থেকেও বেরিয়ে আসছে তার ভয়াবহ প্রতারণার চিত্র।

মহাপ্রতারক সাহেদের বিরুদ্ধে সিলেটের জৈন্তাপুর থানায় আরো তিনটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নম্বরগুলো হলো—৩৫ (১) ২০২০, ৩৬ () ১ ( ২০২০ ও ৩৭ (১) ২০২০। মাওলা স্টোন ক্র্যাশ নামক একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক হাজী শামসুল মাওলা তার কাছে ৩০ লাখ পান। তার থেকে ৩২ লাখ টাকার পাথর নিয়ে আসলেও মাত্র ২ লাখ টাকা দিয়েছে। বাকি ৩০ লাখ টাকার চেক দিয়েছিল। কিন্তু চেক ডিজঅনার হওয়ার পর মামলা হয়। ওয়ারেন্টও ইস্যু হয়। কিন্তু তিনি হাজিরা দেননি। পাওনা টাকা চাইলে তাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এছাড়া ঢাকার উত্তরা পশ্চিম থানায় তার বিরুদ্ধে একটি জিডি করা হয়েছে।

রিজেন্ট হাসপাতালের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু হওয়ার পর সারা দেশে সাহেদের প্রতারণার শিকার শত শত মানুষ টেলিফোনে কিংবা সরেজমিনে এসে র্যাবের কাছে অভিযোগ করছেন। সাহেদ পুলিশে বড় ধরনের বদলি ও পদোন্নতির বাণিজ্য করেছেন। ওসি, এসপি, এএসপিদের পদোন্নতি দেওয়ার নামে বহু টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। সাপ্লাইয়ের কাজ পাইয়ে দেওয়ার নামেও অনেকের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন সাহেদ। তিনি যখন যা মনে করতেন, তখন তাই করতেন। তার ৩০ সদস্যের সুন্দরী নারী বাহিনী ছিল। কাউকে টাকা দিয়ে আবার কাউকে সুন্দরী নারী দিয়ে সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে ফেলতেন। এ কারণে তাকে কেউ কিছু করতে পারত না। জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণেরও খায়েশ ছিল তার। সাতক্ষীরা থেকে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। র্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, যে কোনো মুহূর্তে প্রতারক সাহেদকে গ্রেফতার করা হবে।

এদিকে কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) চিকিত্সা নিয়ে প্রতারণা করা রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোহাম্মদ সাহেদের গ্রেফতারের বিষয়ে শিগিগরই তথ্য দিতে পারবেন বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, ‘যত বড় ক্ষমতাবানই হোক না কেন, অপরাধ প্রমাণিত হলে সাহেদকে ছাড় দেওয়ার প্রশ্নই আসে না।’ শুক্রবার রাজধানী ধানমন্ডির বাসভবনে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন মন্ত্রী। নানা অনিয়ম, প্রতারণা, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ, করোনা পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, চিকিত্সায় অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের প্রধান কার্যালয়, উত্তরা ও মিরপুর শাখা সিলগালা করে দিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। গা ঢাকা দিয়েছেন হাসপাতালের মালিক সাহেদ। সাহেদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে র‍্যাব। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, ব্যাবসায়িক অংশীদাররাও রক্ষা পাননি সাহেদের হাত থেকে। বিভিন্ন সময়ে পাওনা পরিশোধের কথা বলে ঢাকা অফিসের টর্চার সেলে নিয়ে নির্যাতনের অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। সাহেদের স্ত্রীর মুখেও উঠে আসে তার নানা অপকর্মের চিত্র। সাহেদের বিচারও দাবি করেন স্ত্রী সাদিয়া। উত্তরার ১২ নম্বর সেক্টরের রিজেন্ট গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে ঢোকার প্রবেশ মুখেই বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা। এখান থেকেই সব অপকর্ম নিয়ন্ত্রণ করত গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ। বাইরে থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই এই ভবনটিতে কী কী আছে। ভবনটিতে ছিল সাহেদের নিজস্ব টর্চার সেলও। টাকা চাইতে এলেই করা হতো নির্যাতন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতারণার শিকার কয়েক জন ভুক্তভোগী বলেন, সাহেদের কাছে টাকার জন্য গিয়েছিলাম। টাকা চাওয়ামাত্রই তার লোকজন আমাদের দুই হাত ধরে থেকে ঐ রুমটি দরজা বন্ধ করে দিল। এরপরই তিনি আমাদের মারধর করতে থাকেন। এমনকি পাওনাদারকে নারী দিয়ে হেনস্তা করাও ছিল সাহেদের অন্যতম কাজ। ভুক্তভোগীরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে গিয়ে অভিযোগ করতে পারত না সাহেদের বিরুদ্ধে। র্যাব বলছে, প্রতারণার মাধ্যমে টাকা আয়ই ছিল সাহেদের কাজ। কেঁচো খুঁড়তে গিয়ে আমরা অ্যানাকোন্ডা পেয়েছি। এত দিন প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল টাকার অর্জন করেই তিনি অবস্থানে এসেছেন। যখনই কারো সঙ্গে পরিচয় হয়েছে, তখন তিনি নিজেকে আর্মির মেজর, কখনো কর্নেল পরিচয় দিয়েছেন। বিভিন্ন আইডি কার্ড তৈরি করে ভিন্ন ভিন্ন নাম দিয়ে প্রতারণা করেছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর অফিসের পরিচয় দিয়েও প্রতারণার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

রাবির সাবেক অধ্যাপক শিশির ভট্টাচার্য আর নেই
                                  

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণিত বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অধ্যাপক শিশির কুমার ভট্টাচার্য আর নেই।

শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে রাজশাহী নগরীতে নিজ বাসভবনে বার্ধক্যজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়। তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের সভাপতি ড. জুলফিকার আলি।

তিনি জানান, ড. শিশির ভট্টাচার্য ১৯৬৫ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণিত বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। ৪০ বছর শিক্ষকতা শেষে ২০০৫ সালে তিনি অবসরে যান।

জানা যায়, শিশির ভট্টাচার্য গণিত ছাড়াও মহাবিশ্ব ও মহাজাগতিক বিষয়ের ওপর বেশ কিছু বই রচনা করেছেন। তার বেশ কিছু গবেষণা প্রবন্ধ দেশ-বিদেশে প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি ১৯৮০ সালে কুইন মেরি ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন থেকে জ্যোতি-পদার্থবিজ্ঞান (এস্ট্রোফিজিক্স) বিষয়ে পিএইচডি করেন। তিনি ২০১৯ সালে বাংলা একাডেমীর ‘মেহের কবীর পুরস্কার’ অর্জন করেন।

করোনায় ৬৩ চিকিৎসকের মৃত্যু, আক্রান্ত ১৮৬৮
                                  

দেশে ১ হাজার ৮৬৮ চিকিৎসক করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৬৩ জন। এ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে অসুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪৯১ জন নার্স এবং ২ হাজার ৬০ স্বাস্থ্যকর্মী। এদের সকলেই করোনা সংক্রমিতদের চিকিত্তসা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ)। অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও মহাসচিব ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী মৃত চিকিৎসকদের আত্মার শান্তি ও মুক্তি কামনা করেন এবং তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শোক রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর
                                  

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন(৭৭) আর নেই। তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা ২৫ মিনিটে সাহারা খাতুন মারা যান (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)।

দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ঢাকা-১৮ আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন।

শোক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সেনিক হিসেবে সাহারা খাতুন গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে আজীবন কাজ করে গেছেন এবং দলের দুঃসময়ে নেতাকর্মীদের পাশে থেকে আইনিসহ সব সাহায্য-সহযোগিতা প্রদান করেছেন।

তার মৃত্যুতে দেশ ও জাতি একজন দক্ষ নারী নেত্রী এবং সৎ জননেতাকে হারালো। আমি হারালাম এক পরীক্ষিত ও বিশ্বস্ত সহযোদ্ধাকে।

এছাড়া জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আমির হোসেন আমু, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের শোক জানিয়েছেন।

শোক জানিয়েছেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, পরিবেশ বন ও জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রী মো. সাহাব উদ্দিন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ হুয়ায়ূন ও প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী একেএম খালিদ, নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, পানি সম্পাদক উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসসহ বিভিন্ন রাজনীতিবিদ, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আর নেই
                                  
সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন আর নেই। থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা ২৫ মিনিটে তিনি মারা যান। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। চিরকুমারী সাহারা খাতুনের বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর।

তার ব্যক্তিগত সহকারী মজিবুর রহমান গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দেশের প্রথম নারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন ঢাকা-১৮ আসনে সংসদ সদস্য ছিলেন।

সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত সোমবার অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

জ্বর, অ্যালার্জিসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে অসুস্থ অবস্থায় গত ২ জুন সাহারা খাতুন ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে ১৯ জুন সকালে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়।

এরপর অবস্থার উন্নতি হলে তাকে ২২ জুন দুপুরে আইসিইউ থেকে এইচডিইউতে (হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিট) স্থানান্তর করা হয়। পরে ২৬ জুন সকালে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আবারও তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়।

এরপর গত ৬ জুলাই (সোমবার) সাহারা খাতুনকে থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

১৯৪৩ সালের ১ মার্চ ঢাকার কুর্মিটোলায় জন্মগ্রহণ করেন সাহারা খাতুন। তার বাবার নাম আব্দুল আজিজ এবং মায়েন নাম টুরজান নেসা।

সাহারা খাতুন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে একজন আইনজীবী হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন। ঢাকা-১৮ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে সাহারা খাতুন তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০০৮ সালে মহাজোট ক্ষমতায় আসলে প্রথমে তাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়। পরে সেখান থেকে সরিয়ে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের।

পৃথক ফ্লাইটে ইতালি থেকে ফেরত পাঠানো হলো ১৬৫ বাংলাদেশিকে
                                  

দুটি পৃথক ফ্লাইটে ইতালি থেকে ১৬৫ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণ দেখিয়ে তাদের ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে ইতালির বিভিন্ন গণমাধ্যম।

ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাস সূত্রে জানা গেছে, বাণিজ্যিক নগরী মিলানোর মালপেনসা বিমানবন্দরে বুধবার স্থানীয় সময় পৌনে ১টায় কাতার এয়ারওয়েজের একটি বিমান অবতরণ করে।

সেখানে ৪৩ জন বাংলাদেশি যাত্রী ছিল। কিন্তু তাদের নামার অনুমতি দেয়নি ইতালির বিমান কর্তৃপক্ষ। পরে বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে ওই যাত্রীদের নিয়ে দোহারের উদ্দেশে বিমানবন্দর ত্যাগ করে বিমানটি।

তবে মালপেনসা বিমানবন্দর থেকে ৪০ জন বাংলাদেশি যাত্রীকে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে ইতালির স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।

এদিকে দুপুর ১টার দিকে কাতার এয়ারওয়েজের আরেকটি ফ্লাইট ১৪০ জন বাংলাদেশি যাত্রী নিয়ে ইতালির রোমে ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

তাদের মধ্যে ১৫ জনকে নামার অনুমতি দিলেও বাকি ১২৫ জনকে ফেরত পাঠানো হয়েছে বলে সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

স্থানীয় সময় রাত ৮ টার একটু আগে একই বিমানে ফিউমিসিনো বিমানবন্দর ত্যাগ করেন তারা।

জানা গেছে, যে ১৫ জনকে নামার অনুমতি দেয়া হয়েছে তাদের মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি বংশদ্ভেূাত ইতালির নাগরিক। অন্যজন অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় তাকে ফেরত পাঠানো হয়নি।

তবে বাকি বাংলাদেশি যাত্রীদের ফেরত পাঠানোর কারণ হিসেবে স্বাস্থ্যগত সমস্যা উল্লেখ করা হয়েছে ইতালির স্থানীয় গণমাধ্যমে।

দেশের কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা
                                  

দেশের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, এই তিনদিন বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে। পাশাপাশি পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দর সমূহের জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে,দেশের আঠারোটি অঞ্চলের উপর দিয়ে বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়, রাজশাহী, রংপুর, পাবনা, বগুড়া, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চল সমূহের উপর দিয়ে দক্ষিণ/দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কি.মি. বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এদিকে আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থায় বলা হয়েছে, মৌসুমি বায়ুর অক্ষ রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ, বিহার, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারী অবস্থায় বিরাজ করছে।

ফেনীর সিভিল সার্জন প্রাণ হারালেন করোনায়
                                  

মারণ ভাইরাস করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ফেনীর সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেন। ঢাকার আসগর আলী হাসপাতালের আইসিইউতে মঙ্গলবার (০৭ জুলাই) বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে তিনি মারা যান। বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) সভাপতি ডা. শাহেদুল ইসলাম কাউসার গণমাধ্যমকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ১২ জুন নোয়াখালী আবদুল মালেক উকিল মেডিক্যাল কলেজ থেকে প্রাপ্ত ফলাফলে সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেনের করোনা পজিটিভ আসে। পরে গত ১৪ জুন করোনায় শ্বাসকষ্ট অনুভব হলে তাকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালের ৪০ শয্যার হাই-ফ্লো অক্সিজেন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। 

বৃহস্পতিবার (১৯ জুন) পরিবারের ইচ্ছায় ও আরো উচ্চ প্রবাহের অক্সিজেন সেবা চালু না হওয়ায় সিভিল সার্জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়। পরে আজ মঙ্গলবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

সাত দেশ ছাড়া সব দেশের ফ্লাইট বাংলাদেশে নিষিদ্ধ
                                  

দেশের বিমানবন্দরগুলোতে সাত দেশ বাদে সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে বাংলাদেশ। নিষেধাজ্ঞা বলবত্ থাকবে পরবর্তী সময়ে নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত। গতকাল রাত থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে বলে জানায় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

কর্তৃপক্ষ বলছে, ঢাকার সঙ্গে চীন, যুক্তরাজ্যের লন্ডন, মালয়েশিয়া, তুরস্ক, শ্রীলঙ্কা, আরব আমিরাতের দুবাই, কাতারের দোহা রুটে ফ্লাইট চলাচল করবে। তবে নিষেধাজ্ঞায় থাকা দেশগুলো থেকে কার্গো, বিশেষ ফ্লাইট ও এয়ার অ্যাম্বুলেন্স অবতরণ করতে পারবে। এ প্রসঙ্গে বেবিচকের ফ্লাইট স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড রেগুলেশন বিভাগের সদস্য গ্রুপ ক্যাপ্টেন এম জিয়াউল কবির স্বাক্ষরিত এক সার্কুলারে বলা হয়েছে, করোনার প্রাদুর্ভাব এড়াতে ৬ জুলাই রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বাহরাইন, ভুটান, হংকং, ভারত, কুয়েত, মালদ্বীপ, নেপাল, ওমান, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডের আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক যাত্রী পরিবহনের (কমার্শিয়াল প্যাসেঞ্জার ফ্লাইট) ফ্লাইট বাংলাদেশের কোনো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করতে পারবে না।

ফ্লাইট চলাচলের বিষয়ে ১৮ জুন বেবিচকের জারি করা সর্বশেষ সার্কুলারে নিষেধাজ্ঞার আওতাভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কা ও তুরস্কের নাম ছিল। সম্প্রতি নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে এই দেশগুলোর এয়ারলাইন্সকে বাংলাদেশে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। অনুমতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে, তুরস্কের টার্কিশ এয়ারলাইন্স, মালয়েশিয়ার মালিন্দো ও শ্রীলঙ্কান এয়ারলাইন্স।

করোনা ভাইরাসের কারণে চার মাসের বেশি সময় বন্ধ থাকার পর আবারও ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিল রাষ্ট্রীয় ক্যারিয়ার বিমান বাংলাদশ এয়ারলাইন্স। সরকারের কাছ থেকে প্রণোদনার ১ হাজার কোটি টাকা পাওয়ার পর নড়েচড়ে বসেছিল ম্যানেজমেন্ট। বিপর্যয় কাটিয়ে আন্তর্জাতিক রুট শুরু করেছিল। কিন্তু করোনার বিস্তার ও মহামারির ভয়াল পরিস্থিতির কারণে অধিকাংশ দেশের সিভিল এভিয়েশনের অনুমতি না পাওয়ায় থমকে যেতে হলো বিমানকে। গতকাল থেকে আরব আমিরাতের দুবাই ও আবুধাবিতে ফ্লাইট চালুর নির্ঘণ্ট প্রণয়ন করলেও দুবাই সিভিল এভিয়েশনের বাধার কারণে সেই চেষ্টাও ভেস্তে গেছে। অবশেষে সব আন্তর্জাতিক রুট স্থগিত করে দিতে হয়েছে গত রবিবার রাতে।

জানা গেছে, লন্ডন বাদে আন্তর্জাতিক রুটে আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত সব ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। এছাড়া বিমান জানিয়েছে, আগামী ৩১ আগস্ট পর্যন্ত কুয়ালালামপুর ও সিঙ্গাপুর রুটেও বিমানের ফ্লাইট বাতিলের সিদ্ধান্ত বলবত্ থাকবে। বিমান জানায়, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) সিভিল এভিয়েশন ১৬ জুলাই পর্যন্ত দুবাইয়ে ফ্লাইট পরিচালনার সাময়িক সিদ্ধান্ত প্রদান করেছিল। সে অনুযায়ী বিমান ৬ থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত ফ্লাইট পরিচালনার প্রস্তুতি গ্রহণ করে। কিন্তু পরে অনুমতি বাতিল করায় এই ফ্লাইট পরিচালনা স্থগিত করা হয়েছে।

কমছে বন্যার পানি বাড়ছে দুর্ভোগ
                                  

দেশের কোথাও কোথাও বন্যা পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হলেও বিভিন্ন স্থানে নদীর পানি এখনো বইছে বিপত্সীমার ওপর দিয়ে। বেড়েছে লাখ লাখ পানিবন্দি মানুষের দুর্ভোগ। দেখা দিয়েছে নদীভাঙন। টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে গাইড বাঁধ ভেঙে বিলীন হয়েছে ২৫টি বসতবাড়ি, কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তার গর্ভে চলে গেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ইত্তেফাক প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর।

সিরাজগঞ্জ :সিরাজগঞ্জে গত তিন দিন ধরে যমুনা নদীর পানি কমতে শুরু করলেও এখনো তা বিপত্সীমার ওপর দিয়েই বইছে। সোমবার সকালে ১৪ সেন্টিমিটার কমে বিপত্সীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এদিকে জেলার বন্যাকবলিত সিরাজগঞ্জ সদর, কাজীপুর, বেলকুচি, চৌহালী ও শাহজাদপুর উপজেলার বানভাসি মানুষের ঘর-বাড়ি, রাস্তা-ঘাটে এখনো বিরাজ করছে পানি। সে কারণে পাঁচ উপজেলার বাঁধ, উঁচু জায়গা ও স্কুলে আশ্রয় নেওয়া দেড় লক্ষাধিক পানিবন্দি মানুষের দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে।

জামালপুর :জামালপুরের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দুর্ভোগে রয়েছে বানভাসি মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনার পানি ২৭ সেন্টিমিটার কমে বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বিপত্সীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে ব্রহ্মপুত্রসহ শাখা নদনদীর পানি এখন কমতে শুরু করেছে বলে জানান জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু সাইদ। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে জেলার সাতটি উপজেলার ৪৯টি ইউনিয়নের প্রায় ৩ লাখ ৮৭ হাজার ৩৪৯ জন পানিবন্দি মানুষ এখন বাড়িঘরে ফিরতে শুরু করেছে।

মান্দা (নওগাঁ) :উপজেলার জোতবাজার পয়েন্টে আত্রাই নদীর পানি বিপত্সীমার ৪০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ইতিমধ্যে নদীসংলগ্ন এলাকায় বসবাসরত সহস্রাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে আত্রাই ও ফকির্ণি নদীর অন্তত ২০টি পয়েন্ট। বিষ্ণুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন ও সদস্য ইব্রাহীম হোসেন জানান, ২০১৭ সালের বন্যায় চকরামপুর ও কয়লাবাড়ী বেড়িবাঁধ ভাঙার পর আর মেরামত করা হয়নি। নদীর পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে এসব ভাঙন স্থান দিয়ে পানি প্রবেশ করে দুই গ্রামের তিন শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

পানির চাপে ইতিমধ্যে শামুকখোল নমঃশূদ্রপাড়া এলাকায় আত্রাই নদীর বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধ দিয়ে পানি পার হচ্ছে। স্থানীয় লোকজন বাঁধটি টিকিয়ে রাখতে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে কাজ করছেন।

কালিহাতী (টাঙ্গাইল) :টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার গাইড বাঁধ ভেঙে আকস্মিক বন্যায় প্লাবিত হয়েছে ২৫টি পরিবারের দেড় শতাধিক মানুষ। শনিবার গভীর রাতে বাঁধটি ভেঙে গেলে বেলটিয়া গ্রামের কয়েক শ মানুষের ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়। বর্তমানে তারা খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম। তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের সহযোগিতা না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে এলাকাবাসী।

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) :উলিপুরে সোমবার ভোরে চোখের নিমিষেই তিস্তা নদীগর্ভে চলে গেল জুয়ান সতরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্থানীয় লোকজনের উদ্যোগে লোহার অ্যাঙ্গেল ও কিছু টিন রক্ষা করা গেলেও অন্যান্য জিনিসপত্র মুহূর্তেই নদীতে তলিয়ে যায়। স্থানীয়দের অভিযোগ, তিস্তা নদীর ভাঙন থেকে বিদ্যালয়টি রক্ষায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ না থাকায় নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল চরাঞ্চলের একমাত্র বিদ্যাপীঠটি। এছাড়াও গত দুই মাসের ব্যবধানে ব্রহ্মপুত্র ও তিস্তা নদীবেষ্টিত উপজেলার আটটি ইউনিয়নে প্রায় সহস্রাধিক পরিবারের বসতবাড়িসহ আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়াও উপজেলার সাহেবের আলগা ইউনিয়নের চর ঘুঘুমারী কমিউনিটি ক্লিনিক, দৈ খাওয়ার চর নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সুখের চর সরকারি প্রাথমিক ও আশ্রয়কেন্দ্র ভাঙনের হুমকির মুখে রয়েছে।

গাইবান্ধা :গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট তিস্তায় পানি প্রতিদিনই কমছে কিন্তু গত দুই দিন থেকে করতোয়ায় অব্যাহতভাবে পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্রের পানি ২৪ সেন্টিমিটার কমে বিপত্সীমার ১১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ঘাঘটের পানি ১৭ সেন্টিমিটার কমে বিপত্সীমার ১৪ সেন্টিমিটার নিচে ও তিস্তার পানি ২২ সেন্টিমিটার কমে বিপত্সীমার ৪৭ সেন্টিমিটার নিচে চলে গেছে। অন্যদিকে করতোয়ার পানি ৬২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে করতোয়া এখনো বিপত্সীমার নিচে রয়েছে। করতোয়ায় পানি বৃদ্ধিতে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মানুষের মধ্যে বন্যার আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

আজ রাবির ৬৮তম জন্মদিন
                                  
ইতিহাস, ঐতিহ্যের ৬৭ বছর পেরিয়ে সোমবার ৬৮ বছরে পদার্পণ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) । প্রতিষ্ঠার পর থেকে দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামসহ অসংখ্য আন্দোলনে গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির।

১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি (গণঅভ্যুত্থানের সময়) পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নির্মম নির্যাতনে শহীদ হন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন প্রক্টর ও রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ মুহাম্মদ শামসুজ্জোহা। যিনি দেশের ইতিহাসে প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী। এছাড়াও রাবিতে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের নিদর্শন সংগ্রহের জন্য ‘শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা’।

অন্যান্য বছর নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবন, সব আবাসিক হল, ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্ট, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ভবনে শোভা পায় রঙ-বেরঙের আলোকসজ্জা, গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোকে সাজানো হয় নানা রকম আল্পনা দিয়ে। তবে এবার সেই আয়োজন থাকছে না। করোনার কারণে একেবারেই ‘সীমিত পরিসরে’ উদযাপিত হচ্ছে দিবসটি। জন্মদিনের কেককাটার মতো আয়োজনও থাকছে না এবার।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে বড় ধরনের কর্মসূচি পালনে সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এছাড়াও সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী, কর্মচারীর করোনা শনাক্ত হওয়ায় দিবসটি উদযাপনের আয়োজন কমানো হয়েছে।

দিবসটি উদযাপন আয়োজনের দায়িত্বে থাকা রাবির প্রক্টর ও ভারপ্রাপ্ত ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, দেশে করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। আমাদের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সেজন্য এবার একেবারে সীমিত পরিসরে দিবসটি উদযাপন করা হচ্ছে। 

প্রসঙ্গত, ১৯৫৩ সালের ৬ জুলাই থেকে সাতটি বিভাগে ১৫৬ জন ছাত্র এবং পাঁচজন ছাত্রী নিয়ে একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে নয়টি অনুষদের অধীনে ৫৭টি বিভাগ এবং সাতটি ইনস্টিটিউটের অধীনে প্রায় ৩৭ হাজার শিক্ষার্থী  অধ্যয়ন করছেন।

অনিশ্চয়তায় দেশে ফেরা দুই লাখ অভিবাসী শ্রমিক
                                  

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বেশিরভাগ দেশ ব্যয় সংকোচন নীতি গ্রহণ করায় প্রবাসে কর্মরত বিপুল সংখ্যক অভিবাসী শ্রমিক ইতোমধ্যে চাকরি হারিয়ে বাধ্য হয়েছেন দেশে ফিরে আসতে।

বাংলাদেশে লকডাউনের কারণে আটকে পড়ায় নতুন করে আবার বিদেশ গিয়ে চাকরি করতে পারবেন কিনা সেটা নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছেন।

এখন এই অভিবাসী শ্রমিকদের দেশে ফেরত আসা ঠেকাতে সরকারকে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক দুইভাবেই সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

ব্র্যাকের অভিবাসন কর্মসূচি থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী গত ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ মাসের মধ্যে দুই লাখ অভিবাসী শ্রমিক দেশে ফিরেছেন।

এছাড়া ২১ মার্চ আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ হওয়ার পর এ পর্যন্ত চার্টার্ড ফ্লাইটে দেশে ফিরেছেন আরও অন্তত ১৮ হাজার শ্রমিক।

সম্প্রতি সৌদি আরব, কাতার, কুয়েতসহ বিভিন্ন দেশের বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে জানানো হয় যে বিপুল সংখ্যক শ্রমিক চাকরি হারাতে পারেন।

তাই আশঙ্কা করা হচ্ছে সামনের দিনগুলোয় অভিবাসীদের ফেরত আসার এই স্রোত আরো বাড়বে।

বাধ্য হয়ে দেশে ফেরার পর অনিশ্চয়তা
বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের আগেই এই প্রাদুর্ভাব হানা দিয়েছিল সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ইতালিসহ আরো নানা দেশে। যেখানে বহু বাংলাদেশি অভিবাসী কাজ করেন।

ওই দেশগুলোয় বছরের শুরুর দিকেই লকডাউন শুরু হওয়ায় বেকায়দায় পড়ে যান প্রবাসী শ্রমিকরা।

বিশেষ করে যারা অবৈধভাবে আছেন, তাদেরকে এখন জোর করে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। আবার বৈধ শ্রমিকদের অনেককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কাজের চুক্তির মেয়াদ শেষ হলেও বেশিরভাগের সেটা নবায়ন করা হচ্ছে না। আবার চুক্তির মেয়াদ যাদের আছে, তাদের অনেককেই ছুটির নামে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে।

যেমনটা ঘটেছে ঢাকার দনিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা রাশেদুল হাসান রুমির সঙ্গে। গত তিন বছর ধরে সিঙ্গাপুরে নির্মাণশ্রমিক হিসেবে কাজ করে আসছিলেন। সেখানকার কোম্পানির সাথে তার আরো দুই বছর কাজের চুক্তি ছিল।

কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর গত ১১ মার্চ তাকে ছুটির কথা বলে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়। এখন তার ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে আসছে অথচ লকডাউনের কারণে সিঙ্গাপুরে যাওয়ার কোনো ব্যবস্থা হয়নি। তিনি আদৌ সিঙ্গাপুরে ফিরে গিয়ে কাজ করতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

এখন বিদেশ যাওয়ার ঋণ কিভাবে শোধ করবেন, তার আয়ের ওপর নির্ভরশীল সাত সদস্যের পরিবারকেই বা কিভাবে সামলাবেন এমন নানা দুশ্চিন্তা ঘিরে ধরেছে তাকে।

রুমি বলেন, "অনেকের তো চাকরি চলে গেছে। আমাদের কাজের পারমিট ক্যান্সেল করে দিয়েছে। বলেছে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব কাটলে দেখা যাবে। কোম্পানি নিতে চাইলে নিবে, না চাইলে নিবে না। কোনো গ্যারান্টি নাই।"

এমন পরিস্থিতিতে করণীয় কী
অভিবাসীদের পুনর্বাসনের জন্য জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দুটি উপায়ে সরকারের উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন প্রবাসীদের বেসরকারি সংস্থা রামুরুর চেয়ারম্যান তাসনিম সিদ্দিকী।

অভিবাসী শ্রমিকদের অধিকার রক্ষা নিয়ে যে ২০১৬ সালের যে আন্তর্জাতিক বিধিমালা আছে সেখানে বলা হয়েছে, যেকোনো দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে অভিবাসী শ্রমিকরা যেই দেশে অবস্থান করবেন, তাদের দায়িত্ব সে দেশের ওপরই বর্তায়।

অভিবাসী গ্রহণকারী দেশগুলো সেটা তোয়াক্কা করছে না, এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, বিষয়টি আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন ফোরামের সামনে উপস্থাপন করে সমাধান করতে হবে।

তবে যেসব শ্রমিক করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশের ফিরে এসেছেন তাদের দ্রুত দেশের ভেতরেই পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে বলে পরামর্শ দিয়েছেন মিসেস সিদ্দিকী।

তিনি বলেন, "বিশ্বব্যাপী তেলের দাম পড়ে যাওয়ায়, এই শ্রমিকরা পুনরায় কবে বিদেশ যেতে পারবেন, সেটা বলা যাচ্ছে না। কেননা ওই দেশ-গুলোয় সব কিছু স্বাভাবিক হতে আরও সময় লাগবে। এখানে সরকারকে অভিবাসীদের পেছনে বিনিয়োগ করতে হবে।"

সংকট সমাধানে সরকার কী করছে
পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর এই শ্রমিকদের যেন আবার তাদের কাজের জায়গায় ফিরতে পারেন, সেজন্য কাজ করছে সরকারের কয়েকটি মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে গঠিত একটি কমিটি।

বিদেশ থেকে শ্রমিকদের এই ফিরে আসা ঠেকাতে সেইসঙ্গে এরিমধ্যে ফেরত আসা শ্রমিকদের পুনর্বাসনে এই কমিটি কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান প্রবাসী কল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব নাসরিন জাহান।

অভিবাসী গ্রহণকারী দেশগুলোর কাছে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রীর যৌথ স্বাক্ষরিত একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, তারা যেন শ্রমিকদের বাংলাদেশে ফেরত না পাঠিয়ে তাদের দেশেই বিকল্প কর্মসংস্থানে যুক্ত করার চেষ্টা করে।

এছাড়া করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে যেসব প্রবাসী শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়েছেন তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে ইতোমধ্যে ২০০ কোটি টাকার একটি বিশেষ প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার।

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে এই টাকা নেয়া হবে। প্রত্যাগত শ্রমিক বা তাদের পরিবারের সদস্যরা সর্বোচ্চ ৪% সুদে এক লাখ টাকা থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন।

সবশেষ বাজেটে এই দেশে ফেরা প্রবাসীদের জন্য বাড়তি আরও ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।

এই খাতকে আরো লাভজনক করে তুলতে নতুন কয়েকটি দেশে শ্রমবাজার বিস্তৃত করার কথা জানিয়েছেন মিসেস জাহান।

এক্ষেত্রে শ্রমিকদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মধ্যে দক্ষ করে তোলার ওপরও জোর দিয়েছেন তিনি।

"সৌদি আরবে একজন স্বল্প দক্ষ শ্রমিক যে বেতন পায় তার ১০ গুণ বেশি বেতন পায় দক্ষিণ কোরিয়ার একজন দক্ষ শ্রমিক। আমরা ওইসব দেশে শ্রমবাজার সম্প্রসারণ করছি। পূর্ব ইউরোপের দেশ-গুলোয় কৃষি ও স্বাস্থ্য খাতে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আমরা সে অনুযায়ী কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছি।"

তবে সরকারি প্রণোদনা বা বিদেশি দাতব্য সংস্থাগুলো থেকে যে সাহায্য আসছে, সেটা সমন্বিতভাবে একটি নীতিমালার আওতায় বিনিয়োগ করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিএসএমএমইউতে ৩৭০ শয্যাবিশিষ্ট করোনা সেন্টার চালু
                                  

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ৩৭০ শয্যার অত্যাধুনিক পূর্ণাঙ্গ করোনা সেন্টার চালু করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে যারা কিডনি, হার্টসহ বিভিন্ন জটিল রোগে ভোগার পাশাপাশি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তারা এখানে পাবেন উন্নতমানের চিকিত্সা সেবা। বিএসএমএমইউয়ের প্রোভিসি (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. রফিকুল আলমের তত্ত্বাবধানে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও রেসপিরেটরি মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের সমন্বয়ে গঠিত টিম সেবা প্রদানে সার্বক্ষণিক প্রস্তুত থাকবে এই করোনা সেন্টারে।

৩৭০ শয্যার মধ্যে ‘কেবিন ব্লকে’ শয্যার সংখ্যা ২৫০টি এবং ‘বেতার ভবনে’ শয্যার সংখ্যা ১২০টি। ‘কেবিন ব্লকে’ এর মধ্যে ইমার্জেন্সি রোগীদের জন্য রয়েছে ২৪টি শয্যা এবং আইসিইউ শয্যাসংখ্যা হলো ১৬টি। করোনা স্বাস্থ্যসেবায় কেবিন ব্লকে ‘সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট’ স্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া রোগীদের সেবা নিশ্চিত করার জন্য হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলা, নন-ইনভেসিভ ভেন্টিলেটর, যেমন- সি-প্যাপ, অক্সিজেন কনসেনট্রেটর ইত্যাদি স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিটি শয্যায় রয়েছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সাপোর্টসহ অন্যান্য চিকিত্সা সুবিধা। মূলত গুরুতর অসুস্থ রোগীরাই এখানে ভর্তি হবেন। অন্যদিকে বেতার ভবনের ১২০ শয্যায় ভর্তি হবেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত মডারেট রোগীরা। ৩৭০ শয্যার মধ্যে ১২০ আইসোলেশন বেড রয়েছে। বিএসএমএমইউয়ের করোনা সেন্টারে শনিবার থেকে রোগী ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রতিদিন তিনটি শিফটে ৬০ চিকিত্সক, ১০০ জন নার্স এবং সংশ্লিষ্ট প্যারামেডিক্স, ওয়ার্ডবয়, এমএলএসএসসহ শতাধিক স্বাস্থ্যকর্মীসহ মোট ২৬০ জন জনবলের স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী টিম রোগীদের সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন। করোনা সেন্টারে এই চিকিত্সাসেবা প্রদান ও রোগী ভর্তি কার্যক্রম ২৪ ঘণ্টাই চালু থাকবে।

দেশে বর্তমানে চিকিত্সায় উচ্চশিক্ষা প্রদান করছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)। দেশের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সংখ্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ১৯৯৮ সালে আইপিজিএমআরকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করা হয়। সেখান থেকে বিভিন্ন বিষয়ে এমডি, এমএস, এমফিল ইত্যাদি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি প্রদান শুরু হয়। তাই যেকোনো জটিল রোগীরা এখানে সুচিকিত্সা পাবেন। এ কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চেয়েছিলেন বিএসএমএমইউয়ে করোনা সেন্টার চালু হোক। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ স্বল্প সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ করোনা সেন্টার চালু করেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া জানান, বিএসএমএমইউয়ের করোনা সেন্টারে রোগীরা সুচিকিত্সা পাবেন। সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের নিয়ে টিম গঠন করা হয়েছে। যাদের মেডিক্যাল বোর্ড গঠনের প্রয়োজন হবে তাদের জন্য এই বোর্ড গঠন করা হবে। আর করোনা রোগীদের জন্য বাড়তি কোনো খরচ নির্ধারণ করা হয়নি। সাধারণ ও গরীব রোগীদের জন্য আগের নিয়ম বহাল থাকবে।

আবারো হাসপাতালে সুমন বেপারী
                                  

ডুবে যাওয়া লঞ্চের যাত্রী সেজে ১৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার হন সুমন বেপারী। ২১ ঘণ্টা হাসপাতালে থাকার পর রিলিজ দেয়ার ৫৪ ঘণ্টা পর ফের মিটফোর্ড হাসপাতালে শরীর দুর্বল ও মাথা ভন ভন নিয়ে মেডিসিন বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ইসহাক মজুমদারের বিভাগে ভর্তি হয়েছেন।

গত ২৯ জুন চাঁদপুর রুটে ময়ূর ২ লঞ্চের ধাক্কায় ডুবে যাওয়া মর্নিং বার্ড লঞ্চযাত্রী ছিলেন সুমন। এ ঘটনা সত্যি বলে সুমনের এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানসহ একাধিক লোক জানান। আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বেপারী জানান, ঘটনার দিন সুমন সকালে কাঠপট্টি থেকে মর্নিং বার্ড লঞ্চে ওঠে এ কথা সত্য। ওই দিন আরো সাতজন ওই লঞ্চে ছিল। তার মধ্যে একই পরিবারের তিনজনসহ পাঁচজন ডুবে মারা যান। তারা হলেনÑ আব্দুর রহমান ও তার স্ত্রী হানিনা, ছেলে মাঈনুর রহমান ইফাত। এ ছাড়া মনিরুজ্জামান মনির। নিহতরা একই গ্রামের বাসিন্দা। তাদেরকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। তবে এলাকার বাসিন্দা সুমন নামে একজন ১৩ ঘণ্টা পর জীবিত উদ্ধার হয়েছে। ঘটনার পরের দিন রাতে এলাকায় সুস্থ অবস্থায় ফিরে আসে সুমন। ২ জুলাই ফের শরীর দুর্বল ও মাথা ভন ভন করছে বলে হাসপাতালে ভর্তি হতে যায় বলে জানান তিনি।

মুদি দোকানি জাহাঙ্গীর জানান, ঘটনার দিন সুমন ওই লঞ্চে ছিল এ কথা সত্য। কারণ একই গ্রামের আরো ৬ জন যাত্রী ওই লঞ্চে ছিল। তাদের মধ্যে পাঁচ জন ডুবে মারা গেছে। শুধু সুমন ও মাসুদ (২০) নামে দু’জনের জীবিত সন্ধান মিলেছে। সুমন বেপারীর পাশে বাড়ি তার। নিহতদের কবর খোঁড়া হলেও সুমন বেপারীর কবর খুঁড়তে সম্মতি দেয়নি তার পরিবার। বিষয়টি কেমন জানি। তা ছাড়া তার পরিবারের লোকজনকে আতঙ্কিত মনে হচ্ছে। সুস্থ হওয়ার দুই দিন পরে ফের হাসপাতালে ভর্তিও রহস্যজনক বলে জানান তিনি। আব্দুল্লাহপুর গ্রামের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বর আবু বকর মৃধাসহ এলাকার সবার একই ভাষ্য। 

এ দিকে মিটফোর্ড হাসপাতালের দেড় শ’ বছরের পুরনো একটি ভবনের নিচতলায় ফের চিকিৎসা নিতে ভর্তি হয়েছেন সুমন বেপারী। সুমন বেপারীর সাথে থাকা বড়ভাই আবদুর রহমানের ছেলে ভাতিজা আরাফাত জানান, ঘুমিয়ে আছে চাচা। ডাক্তার কাউকে বিরক্ত করতে নিষেধ করেছেন। তা ছাড়া খাবারের টাইমে ঘুম থেকে ডেকে খাওয়াতে হয়। ঘুমিয়ে দিন কাটে সুমন চাচার। সুমনের ওয়ার্ডে ডিউটিরত এক ডাক্তার নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, সুমন বেপারীর নাকি শরীর দুর্বল ও মাথা ভন ভন করছে। তাই ভর্তি করা হয়েছে। সিটিস্ক্যান করেছি। রিপোর্ট আসলে বলতে পারব।


   Page 1 of 89
     জাতীয়
কালীগঞ্জে হাইওয়ে থানার করোনায় আক্রান্ত ১৬ পুলিশ
.............................................................................................
ঈদ পর্যন্ত খাগড়াছড়ির সব পর্যটন স্পট বন্ধ
.............................................................................................
দেশ জুড়ে প্রতারণার জাল সাহেদের
.............................................................................................
রাবির সাবেক অধ্যাপক শিশির ভট্টাচার্য আর নেই
.............................................................................................
করোনায় ৬৩ চিকিৎসকের মৃত্যু, আক্রান্ত ১৮৬৮
.............................................................................................
সাহারা খাতুনের মৃত্যুতে শোক রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন আর নেই
.............................................................................................
পৃথক ফ্লাইটে ইতালি থেকে ফেরত পাঠানো হলো ১৬৫ বাংলাদেশিকে
.............................................................................................
দেশের কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা
.............................................................................................
ফেনীর সিভিল সার্জন প্রাণ হারালেন করোনায়
.............................................................................................
সাত দেশ ছাড়া সব দেশের ফ্লাইট বাংলাদেশে নিষিদ্ধ
.............................................................................................
কমছে বন্যার পানি বাড়ছে দুর্ভোগ
.............................................................................................
আজ রাবির ৬৮তম জন্মদিন
.............................................................................................
অনিশ্চয়তায় দেশে ফেরা দুই লাখ অভিবাসী শ্রমিক
.............................................................................................
বিএসএমএমইউতে ৩৭০ শয্যাবিশিষ্ট করোনা সেন্টার চালু
.............................................................................................
আবারো হাসপাতালে সুমন বেপারী
.............................................................................................
সালথায় খামারিদের মাঝে মোটা তাজাকরণ খাদ বিতরণ।¦
.............................................................................................
ফরিদপুরে চিকিৎসক, পুলিশসহ আরও ১১৬ জনের কোভিড শনাক্ত
.............................................................................................
হু হু করে বাড়ছে তিস্তার পানি
.............................................................................................
যে কোনো বয়সে ভর্তি হওয়া যাবে পলিটেকনিকে
.............................................................................................
অর্থমন্ত্রী চিকিৎসার জন্য গেলেন লন্ডন
.............................................................................................
১৫ জেলায় দুর্ভোগ, বন্যা ছড়াল মধ্যাঞ্চলেও
.............................................................................................
করোনায় এক লাফে মৃত্যু দ্বিগুণ
.............................................................................................
খুলে দেয়া হলো বুড়িগঙ্গা সেতু
.............................................................................................
শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
.............................................................................................
বুড়িগঙ্গা ট্রাজেডি: দ্বিতীয় দিনের উদ্ধার অভিযান শুরু
.............................................................................................
করোনা টেস্টের প্রকৃত চিত্র কেমন বাংলাদেশে ?
.............................................................................................
আইসিইউ ফাঁকা নেই !
.............................................................................................
অনিয়মের অভিযোগে আরো দুই জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মৃত্যু সোয়া লাখ ছাড়াল
.............................................................................................
তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়েই বইছে
.............................................................................................
করোনায় ইন্তেকাল ফেনী আ’লীগ সভাপতির
.............................................................................................
দুশ্চিন্তায় অভিভাবক শিশুকে টিকা দিতে না পারায়
.............................................................................................
আসবে এবার স্বাদে গন্ধে সেরা ইলিশ
.............................................................................................
প্রাতিষ্ঠানিক ত্রাণের ব্যবস্থা করা দরকার
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের মানব পাচার প্রতিবেদনে উন্নতি বাংলাদেশের
.............................................................................................
ইফার সাবেক ডিজি সামীম আফজাল মারা গেছেন
.............................................................................................
আবারও তিস্তার পানি বিপদসীমার উপরে চরাঞ্চল প্লাবিত
.............................................................................................
অতিরিক্ত বিদ্যুৎ বিল করা জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে সরকার
.............................................................................................
ঔষুধ প্রশাসন দেয়নি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কিট রেজিস্ট্রেশনের অনুমোদন
.............................................................................................
খুলনায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু ৩ জনের
.............................................................................................
করোনামুক্ত জাফরুল্লাহ চৌধুরী মিডিয়ার সামনে আসছেন আজ
.............................................................................................
হজ নিবন্ধনকারীরা টাকা ফেরত পাবেন ১২ জুলাই থেকে
.............................................................................................
দুর্ভোগ কমাতে উন্মুক্ত করতে হবে পরীক্ষা বেসরকারি হাসপাতালেও
.............................................................................................
নন-ক্যাডারে ১৭২৬ জন কর্মকর্তা নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি পিএসসির
.............................................................................................
ঐতিহাসিক পলাশী দিবস আজ
.............................................................................................
আক্রান্তের সংখ্যা কমেছে বেড়েছে সুস্থতার হার
.............................................................................................
সুস্থ হয়ে উঠছেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী
.............................................................................................
স্কুল থেকে ঝরে পড়া ও আশঙ্কা শিশুশ্রম বৃদ্ধির
.............................................................................................
কমেনি ডাক্তার নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীদের ঝুঁকি
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো: হাবিবুর রহমান সিরাজ
আইন উপদেষ্টা : অ্যাড. কাজী নজিব উল্লাহ্ হিরু
সম্পাদক ও প্রকাশক : অ্যাডভোকেট মো: রাসেদ উদ্দিন
সহকারি সম্পাদক : বিশ্বজিৎ পাল
যুগ্ন সম্পাদক : মো: কামরুল হাসান রিপন
নির্বাহী সম্পাদক: মো: সিরাজুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : সাগর আহমেদ শাহীন

সম্পাদক কর্তৃক বি এস প্রিন্টিং প্রেস ৫২ / ২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সূত্রাপুর ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৯৯ মতিঝিল , করিম চেম্বার ৭ম তলা , রুম নং-৭০২ , ঢাকা থেকে প্রকাশিত ।
মোবাইল: ০১৭২৬-৮৯৬২৮৯, ০১৬৮৪-২৯৪০৮০ Web: www.dailybishowmanchitra.com
Email: news@dailybishowmanchitra.com, rashedcprs@yahoo.com
    2015 @ All Right Reserved By dailybishowmanchitra.com

Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD