|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|

   এক্সক্লুসিভ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ: কৃষকরা বিপাকে

ফজলে রাব্বি, নাটোর থেকে:
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ করায় তেলিগ্রাম বিলের প্রায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা ২৯ জমির ধান কাটা নিয়ে দু: চিন্তায় কৃষকরা।
শেরকোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ লুৎফুল হাবিব রুবেল শুক্রবার দুপুরে এলাকার কৃষকদের খোঁজখবর নিতে যান।
এসময় তিনি জানান, অত্র এলাকার কৃষকরা ২৯ ধান লাগানোর কারনে সময়মত ধান ঘরে তুলতে পারেনি।
আজ ও ধান কাটা চলছে, বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা জমির ধান ডুবে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি মহোদয়ের পরামর্শে আমরা সাধ্যমত কৃষকদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো।
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ: কৃষকরা বিপাকে
                                  
ফজলে রাব্বি, নাটোর থেকে:
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ করায় তেলিগ্রাম বিলের প্রায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা ২৯ জমির ধান কাটা নিয়ে দু: চিন্তায় কৃষকরা।
শেরকোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ লুৎফুল হাবিব রুবেল শুক্রবার দুপুরে এলাকার কৃষকদের খোঁজখবর নিতে যান।
এসময় তিনি জানান, অত্র এলাকার কৃষকরা ২৯ ধান লাগানোর কারনে সময়মত ধান ঘরে তুলতে পারেনি।
আজ ও ধান কাটা চলছে, বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা জমির ধান ডুবে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি মহোদয়ের পরামর্শে আমরা সাধ্যমত কৃষকদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো।
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ: কৃষকরা বিপাকে
                                  
ফজলে রাব্বি, নাটোর থেকে:
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ করায় তেলিগ্রাম বিলের প্রায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা ২৯ জমির ধান কাটা নিয়ে দু: চিন্তায় কৃষকরা।
শেরকোল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ লুৎফুল হাবিব রুবেল শুক্রবার দুপুরে এলাকার কৃষকদের খোঁজখবর নিতে যান।
এসময় তিনি জানান, অত্র এলাকার কৃষকরা ২৯ ধান লাগানোর কারনে সময়মত ধান ঘরে তুলতে পারেনি।
আজ ও ধান কাটা চলছে, বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় ১৫শ থেকে ২ হাজার বিঘা জমির ধান ডুবে যাওয়ার আশংকা রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি মহোদয়ের পরামর্শে আমরা সাধ্যমত কৃষকদের পাশে থাকার চেষ্টা করবো।
১ নম্বর সতর্ক সংকেত সাগরে , ঘূর্ণিঝড় আমফান আসতে পারে
                                  

দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগরে সুস্পষ্ট লঘুচাপটি নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। ফলে সাগর উত্তাল থাকায় ১ নম্বর দূরবর্তী সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। আর নিম্নচাপটি তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। চতুর্থ পর্যায়ে আরও শক্তি সঞ্চয় করলে এটি রূপ নিতে পারে ঘূর্ণিঝড়ে।

আবহওয়াবিদ মো. শাহীন হোসেন বলেন, যদি নিম্নচাপটি শক্তি সঞ্চয় করে সাইক্লোনে রূপ নেয়, তবে এটির নাম হবে আমফান (amphan)। থাইল্যান্ড নামটি দিয়েছে। নিম্নচাপটি তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে শক্তি সঞ্চয় করলে। তারপরে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে। আপাতত শক্তি সঞ্চয় হচ্ছে। আরও ঘণীভূত হতে পারে।

আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক স্বাক্ষরিত এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংগ্ন দক্ষিণ আন্দামান সাগর এলাকায় অবস্থানরত সুস্পষ্ট লঘুচাপটি ঘণীভূত হয়ে দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন আন্দামান সাগর এলাকায় নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে।

এটি শুক্রবার (১৫ মে) দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৫০ কিলোমিটার (কিমি) দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৭৫ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৩৫ কিমি দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ১ হাজার ২৯০ কিমি দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। নিম্নচাপ কেন্দ্রের ৪৪ কিমির মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৪০ কিমি, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৫০ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কেরানীগঞ্জে কারখানায় ভয়াবহ আগুন
                                  
 
 

ঢাকার অদূরে কেরানীগঞ্জের চুনকুটিয়ায় প্লাস্টিকের থালা তৈরির কারখানায় ভয়াবহ আগুনে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে।  ‘প্রাইম প্লেট অ্যান্ড প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’ নামের ওই কারখানায় আগুন দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়লে শ্রমিকরা তাৎক্ষণিক বের হতে পারেননি। এতে কারখানার ভিতর আটকে পড়ে থাকা এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া দ্বগ্ধ হয়েছেন অন্তত ৪০ জন। এদের মধ্যে ২৮ জনকে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। অনেকের শ্বাসনালি পুড়ে গেছে। ফায়ার সার্ভিসের ১০টি ইউনিটের এক ঘণ্টা চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। প্লাস্টিকের কারখানায় বিভিন্ন ধরনের দাহ্য পদার্থ থাকার অল্প সময়ের মধ্যেই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ বেড়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে।

গতকাল বিকাল ৪টায় ওই কারখানায় আগুনের সূত্রপাত হয়। এ সময় শ্রমিকরা কাজে ব্যস্ত ছিলেন। কারখানার একজন শ্রমিক জানান, গ্যাস লাইনে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলতে থাকে। শ্রমিকরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে। শ্রমিকরা তখন প্রাণভয়ে  ছোটাছুটি করতে থাকেন। আগুনের তীব্রতা এতটাই ভয়াবহ ছিল যে, কারখানা থেকে বের হতে পারলেও উত্তাপে প্রায় সবাই দ্বগ্ধ হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে নেওয়া হয়। ফায়ার সার্ভিস জানায়, তাদের সন্দেহ গ্যাস লিকেজের কারণে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। ওই কারখানায় একবার (ওয়ান টাইম) ব্যবহারযোগ্য প্লাস্টিকের গ্লাস ও প্লেট তৈরি করা হতো বলে জানা গেছে। একতলা টিনশেড এই কারখানার মালিক নজরুল ইসলাম। গত ফেব্রুয়ারি মাসেও একই কারখানায় আগুনের ঘটনা ঘটেছিল বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। বিকালে সরেজমিন ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা ঘটে। পরিস্থিতির গুরুত্ব অনুধাবন করে দ্বগ্ধদের আনতে ঢাকা মেডিকেল থেকে ঘটনাস্থলে ১৫ থেকে ২০টি অ্যাম্বুলেন্স পাঠানো হয়।

হাসপাতাল সূত্র জনায়, দগ্ধ সবাই ওই কারখানার শ্রমিক। এরা হলেন- লাল মিয়া, মেহেদী, দুর্জয়, সুজন, ওমর ফারুক, এহসান, রিয়াজ, জাকির, সোহাগ, মফিজুল, মোস্তাকিম, সালাউদ্দিন, আলম, সজল, ফিরোজ, আসলাম, ইমরান, দিদারুল, জিসান, রাজ্জাক, সোহান, ফয়সাল, বাবুল, জাহাঙ্গীর, বশির, খালেদ, শাখাওয়াত ও আবু সাঈদ। এদের বয়স ২০ থেকে ৩৮ বছরের মধ্যে। বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক ডা. পার্থ শঙ্কর পাল জানান, এখন সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। কে কত শতাংশ দগ্ধ হয়েছেন তা পরে বলা যাবে।

ক্যাজুয়ালটি বিভাগের আবাসিক চিকিৎসক ডা. আলাউদ্দিন বলেন, আমাদের সবার ছুটি বাতিল করে রোগীদের সেবার জন্য আসতে বলা হয়। আগুনের খবরে দগ্ধদের চিকিৎসা দিতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হয়।

ইলিয়াস কাঞ্চন শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছেন
                                  
 
 

কোথা থেকে কত টাকা পান, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার তথ্য প্রমাণ জাতির সামনে তুলে ধরতে আহ্বান জানিয়েছেন নিরাপদ সড়ক চাই-আন্দোলনের চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি বলেন, আমি শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টার সময় বেঁধে দিচ্ছি। এই সময়ের মধ্যে এই তথ্য জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে। নতুবা আমরা আইনের পথে হাঁটব।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে গতকাল নিরাপদ সড়ক চাই-নিসচা আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি সড়ক পরিবহন ফেডারেশনের কার্যকরী সভাপতি শাজাহান খানের প্রতি এই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন। শাজাহান খানের বক্তব্যকে ‘মিথ্যাচার’ উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি। তিনি বলেন, নিসচার বিদেশ থেকে অর্থ আনার বিষয়ে শাজাহান খানের সম্প্রতি দেওয়া বক্তব্য নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে পেছন থেকে ছুরিকাঘাতের শামিল। যদি তার সেই সৎ সাহস থাকে তাহলে সামনে এসে বিদেশ থেকে অর্থ আনার তথ্য প্রমাণ নিয়ে বসুন। প্রয়োজনে লাইভ টকশো হবে সারা দেশের মানুষ দেখবে।

আমরা মনে করি আইনের বাস্তবায়নকে বাধাগ্রস্ত করতে তিনি ‘উদোর পিি  বুধোর ঘাড়ে’ চাপাচ্ছেন। তাই আমরা তার বক্তব্যের সপক্ষের প্রমাণ দেশবাসীকে দেখানোর আহ্বান জানাচ্ছি। নইলে এই মিথ্যা ও জঘন্যতম বক্তব্যের প্রতিবাদে রাজপথে নামতে বাধ্য হবে নিসচা কর্মী ও দেশবাসী। তিনি বলেন, এই শাজাহান খানরা নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য শ্রমিকদের শুধুই ব্যবহার করে আসছেন। শ্রমিকদের জুজুর ভয় দেখিয়ে আমার বিরুদ্ধে ব্যবহার করছেন। পরিবহন সেক্টরে বছরে বিভিন্ন খাতে যে টাকা তোলা হয়, সেই টাকার কত অংশ শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়েছে? কয়টা প্রতিষ্ঠান করা হয়েছে, শ্রমিকদের দক্ষ করার জন্য? কয়টি হাসপাতাল হয়েছে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সেবার জন্য? কয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হয়েছে শ্রমিকদের সন্তানদের লেখাপড়ার জন্য, কয়টি আবাসন পল্লী হয়েছে শ্রমিকদের জন্য, শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নে এই টাকার কত অংশ ব্যয় করা হয়? এ পর্যন্ত কতজন চালক তৈরি করেছেন? চালকদের দক্ষ করার লক্ষ্যে কী উদ্যোগ নিয়েছেন? কিন্তু আমরা ২০ থেকে ২৫ হাজার চালককে প্রশিক্ষণের আওতায় এনেছি। আমরা মনে করি আমরা পথ দেখাতে পারি এবং সেই পথেই আছি। সংবাদ সম্মেলনে ইলিয়াস কাঞ্চন সরকারের কাছে নিজের ও নিচসা সদস্যদের জানমালের নিরাপত্তায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান।

শেখ রাসেলের জন্মদিনকে “শিশু রক্ষা দিবস” পালনের দাবী জানালো : বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট
                                  


পিকে বর্মণ : গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা দিবস ও শেখ রাসেলের জন্মদিনকে শিশু রক্ষা দিবস পালনের দাবীতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম এমপি। সভার সভাপতি ফাল্গুনি হামিদ সাধারণ সম্পাদক সহ একাধিক নেতৃবৃন্দের দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান অতিথি বলেন- শেখ রাসেলের কথা স্মরণ হলেই হৃদয়ে রক্তক্ষরণ অনুভব করি। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে মেরেই খান্ত হয়নি খুনিরা শেখ রাসলেকেও নির্মম ভাবে হত্যা করে। আজ এই সভায় বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আমার মাধ্যমে শেখ রাসেলের জন্মদিনকে শিশু রক্ষা দিবস পালনের ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সংসদে বিষয়টি উত্থাপনের দাবী জানালেন। আমি এ বিষয়টিতে অবশ্যই সহযোগিতা করার চেষ্টা করব। ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা দিবস প্রসঙ্গে তিনি বলেন জাতীয় চার নেতাকে জেলে চার দেয়ালের ভিতর অত্যান্ত নির্মম ভাবে হত্যা করেছিল বঙ্গবন্ধুর চার সহযোদ্ধাকে। এর মধ্যে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, এ এইচ এম কামরুজ্জামান ও আমার বাবা ক্যাপ্টেন মুনসর আলী। বেঈমান খুনী মুস্তাকের মত আমার বাবাও তার সাথে জাতীয় তিন নেতাকে তাদের ঘৃনিত প্রস্তাবে রাজী করাতে পারেনি বলে তাদেরকে জেলের ভিতর কারাবন্দী অবস্থায় নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছিল। তিনি ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলেন সে সময় আমি আমার বাবার লাশটি পর্যন্তও দেখতে পাইনি। পরিবহন মালিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন-আইন করা হয়েছে জনকল্যাণের জন্য এখানে চাঁদাবাজদের অসুবিধা হতে পারে জনগণের নয়। শেখ হাসিনার সরকার জনগণের সরকার।
সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কার্যনির্বাহী সভাপতি নাট্যজন ফাল্গুনি হামিদ বলেন-৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ঘাতকদের পথ নিরঙ্কুষ করার জন্য জাতীয় চার নেতাকে জেলের ভিতর হত্যা করে পৃথিবীর সবচেয়ে ঘৃণিত কাজটি করা হয়েছিল। আমি প্রায়ত এই চার নেতার প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানাচ্ছি। তিনি আরো বলেন শেখ রাসেলে জন্ম দিনকে শিশু রক্ষা দিবস পালনের জোর দাবী জানাচ্ছি এবং আজকের এই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির মাধ্যমে আমি বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি ও এম এ কাদের খান। প্রধান বক্তা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ সময়োপযোগী ও ফলপ্রসু বক্তব্য রাখেন। আরো বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান, চিত্রনায়ক ড্যানী সিডাক, আশরারুল হাসান আসু, আব্দুল মতিন ভূঁইয়া, এম এ করিম, মাহবুবুর খান, এ এইচ রানা, জামাল উদ্দিন মোঃ আকবর বাবলা, ওয়াহিদুজ্জামান মতি, জাহাঙ্গীর সিকদার, কাবেরী রহমান, নবীন কিশোর গৌতম সহ আরো অনেকে। আরো উপস্থিত ছিলেন-সানজিদা রোজ, রোকনুজ্জামান সোহাগ, কামরুল ইসলাম, লিটন মৃধা, খাদিজা রহমান, মোঃ শরীফ ও সহ-প্রচার বিষয়ক সম্পাদক পিকে বর্মণ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বেলায়েত হোসেন সাগর।

শতভাগ বিদ্যুতে আলোকিত কেরানীগঞ্জ
                                  

 

 

শতভাগ বিদ্যুতের আলোয় বদলে গেছে রাজধানী ঢাকার উপকণ্ঠের জনপদ কেরানীগঞ্জ উপজেলা। এখানে চার-চারটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করায় এটি এখন আলো-ঝলমলে উপজেলা। মাত্র দেড় দশক আগেও সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে বেশির ভাগ গ্রামের ঘরে ঘরে জ্বলত সাঁঝবাতি। ঢাকার নিকটবর্তী হয়েও অধিকাংশ এলাকা ছিল বিদ্যুতায়নের বাইরে। কৃষকের জমির মাঝ বরাবর দেখা যেত বিদ্যুতের খুঁটির পর খুঁটি। রাজধানীর কাছাকাছি থেকেও এ জনপদের অধিবাসীদের ছিল নানা অভিযোগ আর আক্ষেপ। হাতে গোনা কয়েক জায়গায় বিদ্যুৎ ছিল। এতেও লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা ভোগ করতেন গ্রাহকরা। ঢাকার অদূরে এ জনপদের চিত্র পুরোপুরি বদলে গেছে। এ উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ১৩০ কিলো মেগাওয়াট। কিন্তু উৎপাদন হয় ১৫০ কিলো মেগাওয়াট। ফলে উদ্বৃত্ত থাকে ২০ কিলো মেগাওয়াট।

সুরমা পাড়ে পরিচ্ছন্নতায় তিন ব্রিটিশ এমপি
                                  

 

 

কিনব্রিজ, আলী আমজদের ঘড়ি আর চাঁদনীঘাটের সিঁড়ি; সিলেটের ঐতিহ্যের তিন স্মারক। সুরমা পাড়ের এই তিন স্থাপনা মুগ্ধ করে সিলেট ভ্রমণে আসা পর্যটকদের। পর্যটকদের পাশাপাশি খোলা হাওয়ায় সময় কাটাতে প্রতিদিন বিকালে এসব স্থাপনার কাছে ভিড় করেন নগরবাসী। কিন্তু পর্যটক আর স্থানীয়দের ফেলা ময়লা-আবর্জনায় সুরমাপাড়ের পরিবেশ  নোংরা হয়ে ওঠে।

গতকাল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ক্লিন সুরমা গ্রিন সিলেট’-এর কর্মীরা সুরমাপাড়ের সৌন্দর্য দেখাতে নিয়ে যান ব্রিটিশ তিন এমপিকে। এ সময় সুরমাপাড়ের চাঁদনীঘাট এলাকায় ময়লা পরিষ্কারে নেমে পড়েন ব্রিটেনের কনজারভেটিভ পার্টির ডেপুটি চেয়ারম্যান পল স্কালি এমপি, কনজারভেটিভ ফ্রেন্ডস অব বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট অ্যান মারগারেট মেইন এমপি এবং বব ব্ল্যাকম্যান এমপির নেতৃত্বে ২২ সদস্যের প্রতিনিধি দল। সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত তারা সুরমাপাড়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করেন। পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম শেষে ব্রিটিশ এমপিরা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বদলে যাচ্ছে আবহাওয়া। এ কারণে গোটা বিশ্ব আজ হুমকির মুখে। নদীতে ময়লা ফেলার কারণে নদীর পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। সিলেট সিটি করপোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়নে ব্রিটেন সরকারের সহযোগিতার আশ্বাস দেন ব্রিটিশ এমপিরা।

নিজের ফাঁসি চাইলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী
                                  

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে মনোনয়ন না পেয়ে হতাশা ও কষ্ট নিয়ে ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস দিয়েছেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নাজনীন আলম। যেখানে তিনি মনোনয়ন না পাওয়ায় নিজেই নিজের ফাঁসি চেয়েছেন। আর ফাঁসির কারণ হিসেবে ৮টি কারণও বর্ণনা করেন তিনি। নাজনীন আলমের সেই স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধরা হলো।

আমার ফাঁসি চাই...!

১) কেন হাই কমান্ডের আশ্বাসকে সরল মনে বিশ্বাস করেছিলাম!
২) এলাকাবাসী ও দলীয় নেতাকর্মীদের পাশে থাকার প্রয়োজন কেন অনুভব করেছিলাম!
৩) এমপি/সিনিয়র কোন নেতার পরিবারের সদস্য কেন আমি হলাম না!
৫) কেন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে একটি পয়সা রোজগারের ধান্ধা করিনি!
৬) কেন দলের জন্য কাজ করতে গিয়ে দিনে দিনে নিঃস্ব হতে গেলাম!
৭) কেন জনসমর্থন অর্জনের চেষ্টা করেছিলাম!
৮) কেন দলের ভোট ব্যাংক সমৃদ্ধ করতে সদা তৎপর ছিলাম!
৯) কেন তদবির/তেলবাজি ঠিকমত করতে পারলাম না!
১০) কেন সমর্থকদের বার বার কাঁদাচ্ছি!!

সম্ভবত: এ সবই আমার ভুল/অপরাধ...! এজন্য আমার শাস্তি হওয়া উচিত।

হোটেল বিলই ১৫০ কোটি টাকা
                                  

রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করা বিদেশি সংস্থাগুলো গত ছয় মাসে ১৫০ কোটি টাকা হোটেল বিল দিয়েছে। তবে ভুক্তভোগী রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দের ২৫ শতাংশের বেশি ব্যয় করেনি এই সংস্থাগুলো।
আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের পর আজ বুধবার এসব তথ্য জানানো হয়। সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বৈঠকটি হয়।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর নতুন গঠিত সরকারের আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির আজ প্রথম বৈঠক হলো। আজকের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন বিদেশি সংস্থা গত ছয় মাসে ১৫০ কোটি টাকা শুধু হোটেলের বিল দিয়েছে। কিন্তু ভুক্তভোগীদের জন্য বরাদ্দের ২৫ শতাংশের বেশি ব্যয় করেনি। মন্ত্রী বলেন, ‘বিষয়টি দুঃখজনক। এ বিষয়ে মন্ত্রিসভা কমিটি উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।’

 

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা যেন মিয়ানমার থেকে আর না আসতে পারে, সে জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বলা হয়েছে। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়ার কাজ চলছে।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ভাসানচর এলাকাটি বসবাসের উপযুক্ত করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের কোথায় রাখা হবে, সেটা বাংলাদেশের সিদ্ধান্তের বিষয়। বিদেশিরা তাদের মানবিক দিকগুলো দেখবে। আমাদের বিষয়ে নাক গলানোর তাদের দরকার নেই।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি আগের চেয়ে ভালো।

আজকের বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানসহ কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের নির্দেশ
                                  

সরকারবাংলাদেশে ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারিত সব বিদেশি টিভি চ্যানেলে দেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার অবিলম্বে বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে তথ্য মন্ত্রণালয়। এ নির্দেশ অমান্য করলে ডিস্ট্রিবিউশন লাইসেন্স বাতিল/স্থগিত এবং ২৮ ধারা মোতাবেক ২ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

তথ্য মন্ত্রণালয় এর আগে জারিকৃত এক পত্রে বলেছে, কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন-২০০৬ এর ধারা ১৯ এর ১৩ নম্বর উপধারায় বিদেশি টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচার সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

কিন্তু বাংলাদেশে ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারিত কোনো কোনো বিদেশি টিভি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করা হচ্ছে মর্মে জানা গেছে, যা উক্ত আইনের পরিপন্থী।

বিদেশি টিভি চ্যানেল ডাউনলিংকপূর্বক সম্প্রচারের জন্য প্রদত্ত অনুমতি বা অনাপত্তিপত্রে ‘কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন, ২০০৬’ যথাযথভাবে প্রতিপালনের শর্ত আরোপ করা হয়েছে। তাই বিদেশি কোনো টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে দেশি পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার করলে উক্ত আইনের ১১ ধারা মোতাবেক ডিস্ট্রিবিউশন লাইসেন্স বাতিল/স্থগিত এবং ২৮ ধারা মোতাবেক ২ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

এর আগে গতকাল তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, বিদেশি টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচারের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে

তিমির সঙ্গে ফেরির ধাক্কা, আহত ৮০
                                  

জাপানে তিমি মাছের সঙ্গে একটি ফেরির ধাক্কা লাগার পর অন্তত ৮০ জন যাত্রী আহত হয়েছে। এর মধ্যে ১৩ জনের অবস্থা গুরতর। গতকাল শনিবার জাপান উপকূলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জাপানের নীগাটা বন্দর থেকে হাইড্রোফয়েল জাহাজটি শনিবার স্যাডো আইল্যান্ডে ফিরছিল। ঘটনাটির পর ফেরিটি এক ঘণ্টা দেরিতে তার গন্তব্যে পৌঁছাতে সক্ষম হয়। দুর্ঘটনার সময় জাহাজটিতে মোট ১২১ জন যাত্রী এবং চারজন ক্রু ছিলেন।

কিয়োডো নিউজ এজেন্সিকে এক যাত্রী বলেন, বিকট জোরে শব্দ হওয়ার পর আমি সামনের সিটে ধাক্কা খাই। আমার আশেপাশের সবাই যন্ত্রণায় চিৎকার করছিল।

কুতুবদিয়ায় ২২ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি যৌথ সামরিক মহড়া
                                  

চলতি মাসের ২২ থেকে ২৭ তারিখ পর্যন্ত চট্টগ্রামের কুতুবদিয়াসংলগ্ন এলাকায় সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর যৌথ সামরিক অনুশীলন অনুষ্ঠিত হবে। আজ বুধবার আন্তবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এ সময় স্থানীয় লোকজন ও নৌযানকে অনুশীলন এলাকা যথাসম্ভব এড়িয়ে সতর্কতার সঙ্গে চলতে বিশেষ অনুরোধ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘মহড়া চলাকালে জননিরাপত্তার স্বার্থে কুতুবদিয়াসংলগ্ন (ফাতেহপাড়া, কালামপাড়া, বঙ্গকাটা, আকবর আলীপাড়া, চাঁদেরপাড়া এবং চরধুরং) এলাকায় বসবাসকারী সকল বেসামরিক ব্যক্তি ও নৌযানগুলোকে অনুশীলন এলাকা যথাসম্ভব পরিহার করে সতর্কতার সঙ্গে চলাচল করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে।’

সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর প্রধানেরা এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার ও তিন বাহিনীর ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তারা চূড়ান্ত অনুশীলন পর্যবেক্ষণ করবেন। এর মাধ্যমে আন্তবাহিনীর সমন্বিত যুদ্ধ সক্ষমতা, যোগাযোগ এবং যুদ্ধকৌশলগত পরিকল্পনার বাস্তবিক প্রয়োগ রপ্ত করা সম্ভব হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

বেঁচে থাকবেন গোলাম সারওয়ার
                                  

স্বনামধন্য মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার ঘুমিয়ে গেছেন। আর জাগবেন না। কিন্তু তিনি তাঁর বর্ণাঢ্য কর্মমুখর জীবনে যেসব কাজের উদাহরণ তৈরি করে গেছেন, তা তাঁকে স্মরণীয় করে রাখবে। যুগান্তর ও সমকাল–এর প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন তিনি। কিন্তু নিজেকে চূড়ান্ত বিচারে বার্তা সম্পাদকই ভাবতেন। যেন ‘মোর নাম এই’ বলে খ্যাত হোক। তিনি ইত্তেফাক–এ ২৭ বছর বার্তা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। একই সঙ্গে তিনি ছিলেন গদ্যশিল্পী। আমরাও হুমায়ূন আহমেদের মূল্যায়নের সঙ্গে একমত। ২০০৩ সালে চিঠিটি যুগান্তর–এ এলে আমি তাঁকে পড়ে শোনাই। হুমায়ূন আহমেদ লিখেছেন, ‘আপনার গদ্য তো সাংবাদিকতার গদ্য না, সহজ নির্ভার আনন্দময় গদ্য, এই খবরটা কি আপনাকে কেউ দিয়েছে?’

তাঁর অগোচরে তাঁরই লেখাগুলোর সংকলন করেছিলাম। ষাটের দশকে পূর্বাণীর লেখা থেকে পরের তিন দশকের লেখা জমিয়ে দুটি বই বের হলো। সারওয়ার ভাই লিখলেন, আমি তাঁকে ‘জবরদস্তি’ বই লেখক বানিয়েছি। মৃত্যুর আগে অবশ্য তিনি একটি স্মৃতিকথা লেখার আগ্রহ ব্যক্ত করেছিলেন। যুগান্তর ও সমকাল–এ তাঁর সহকর্মী ছিলাম। সবকিছু ছাপিয়ে দেখেছি একজন সংবাদ অন্তপ্রাণ, সংবাদই ছিল তাঁর ধ্যানজ্ঞান। তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাঞ্জলি। খবরের পরিবেশনায় তাঁর নৈপুণ্য জাদুকরি, ইত্তেফাক–এর হিরণ্ময় পর্বে তাঁর উদ্যোগে প্রকাশ করা টেলিগ্রামগুলো উদ্ভাবনী সাংবাদিকতার নজির হয়ে থাকবে। তিনি বলতেন, প্রতিবেদনে প্রতিবেদকের ঘামের গন্ধ থাকতে হবে। যুগান্তর–এ তিনি আমাকে কলাম লেখার অবাধ স্বাধীনতা দিয়েছিলেন।

সিনেমা-নাটক থেকে সংগীত, রাজনীতি থেকে আদালত, বিদেশনীতি থেকে ক্রীড়া—সবকিছুতেই তাঁর পদচারণ ছিল। প্রাণপ্রাচুর্যে ভরা ছিল তাঁর সাংবাদিকতার জগৎ। প্রধান প্রধান খবরের সূচনা লেখা ছিল তাঁর এক নম্বরের নেশা। এরপর তাঁর একটা জুতসই শিরোনাম দেওয়া এবং অঙ্গসজ্জায় তাকে ফুটিয়ে তোলার ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন অসামান্য। ইত্তেফাক, যুগান্তর ও সমকাল–এর, বিশেষ করে প্রথম পৃষ্ঠার কত শত রিপোর্টের প্রথম ভাগ যে তাঁরই লেখা, তার সাক্ষী দেবে বার্তাকক্ষের চেয়ার-টেবিল।

চলচ্চিত্র ও খেলাধুলাকে মূলধারার সাংবাদিকতায় নিয়ে আসার ক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা ছিল অসামান্য। বিশ্বকাপ ফুটবলের খবর দিয়ে পাঠকদের মাত করার ধারা শুরুর অন্যতম পথিকৃৎ ছিলেন তিনি। নব্বইয়ে ইতালির বিশ্বকাপে মতিউর রহমান চৌধুরীর সঙ্গে ম্যারাডোনার সাক্ষাৎপর্বের খবর ইত্তেফাক–এ তিনি প্রথম পৃষ্ঠায় ছেপেছিলেন। ১৯৯৮ সালের ২৪ অক্টোবর ইত্তেফাক–এ তিনি লিখলেন, ‘সব ভুলতে পারি কিন্তু ক্রিকেট নয়।’ আমাদের চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়িকা ববিতা, শাবানা ও কবরীকে তিনি তাঁর লেখালেখির উপজীব্য করেছিলেন।

গত ১ এপ্রিল তাঁর ৭৫তম জন্মবার্ষিকীতে কবরী শুভেচ্ছা জানাতে এসে তাঁর বিখ্যাত হাসি ছড়িয়ে টিপ্পনী কাটেন। বলেন, শাবানার প্রতি সারওয়ার ভাইয়ের পক্ষপাত তিনি ভুলতে পারেন না! সারওয়ার ভাই তা খণ্ডন করে বলেছিলেন, কবরী জানেন এই অভিযোগ সঠিক নয়। চার দশক আগে তিনি পূর্বাণীতে সারেং বউ ছবি প্রসঙ্গে লিখেছিলেন, ‘কবরী যেন কবরী নন, এ যেন শহীদুল্লা কায়সারের মানসকন্যা, বিরহিণী, দুঃখিনী, স্বামী সোহাগে গরবিনী নবিতুন স্বয়ং।’ শাবানা জননী ছবির পার্শ্বচরিত্রে অভিনয়ের জন্য পুরস্কার পেয়েছেন। সেটা সারওয়ার ভাইয়ের মনঃপূত হয়নি। শাবানার অম্লমধুর সমালোচনা, ‘এ পুরস্কারপ্রাপ্তির অগৌরব জানি না শাবানাকে কতখানি সংকুচিত করেছে। সমস্ত অগৌরব ম্লান করে দিয়ে শাবানা প্রমাণ করুন, অভিনয়নৈপুণ্যেই প্রশংসার উজ্জ্বল মুহূর্ত সৃষ্টি করতে আপনি সক্ষম। সেই অনাগত উজ্জ্বল মুহূর্তের জন্য আপনার পুরস্কারপ্রাপ্তির অভিনন্দন জমা থাকল।’ (পূর্বাণী, ১৩৮৫)

সংবাদপত্রের পাতায় কেবল রাজনৈতিক দুর্যোগের ঘনঘটা। ক্রিকেটে ১৯৯৬ সালে এক বড় জয় এল। জনতা জনার্দনকে তিনি উদ্বেলিত করছেন: ‘অশ্রুসজল ভৈরবীর’ সুর ইথারে মিলাইয়া গেল—বাতাসে ছড়াইয়া গেল আনন্দের লহরী। যেন নির্ঝরের স্বপ্নভঙ্গ হইল।’ লেখায় কাব্য ব্যঞ্জনা দেওয়ার দিকে তাঁর ঝোঁক স্বাভাবিক। ‘জনগণের হৃদয়ের রানি’ ডায়ানা–বন্দনায় তিনি রবীন্দ্রনাথের শরণ নেন, ‘নহ মাতা, নহ কন্যা, নহ বধূ সুন্দরী রূপসী হে নন্দন বাসিনী উর্বশী।’

১৯৯৬ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন নিয়ে গোটা দেশ অগ্নিগর্ভ। তিনি লিখলেন, ‘নানা বাহারী পুষ্পের চমৎকৃত সুগন্ধ হৃদয়-মন ভরানোর এই মায়াময় ঋতুর অপেক্ষায় যাহারা অধীর, তাহাদের চোখে বসন্তের আবেশে নয়, কাঁদানে গ্যাসের ঝাঁজের দুঃসহ যন্ত্রণা।’ (ইত্তেফাক, ১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬)। ২০০০ সালের ১ ফেব্রুয়ারিতে যুগান্তর–এ তিনি লিখেছিলেন, ‘বিরোধী দলশূন্য সংসদ এখন সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা পূরণের করুণ প্রতীকে পরিণত হইয়াছে।’ ১৯৯৬ সালের ২৬ মার্চ লিখেছেন, ‘সামনে সম্ভবত অপেক্ষা করছে আরও সংঘাত আরও সংকট।’ কবি শামসুর রাহমান থেকে তাঁর উদ্ধৃতি, ‘প্রবল ঝাঁকুনি লাগে মানবিকতার দৃঢ় ভিতে/ শ্রেয়বোধ লুপ্তপ্রায়, সহিংসতা নাচে দিন রাতে।’ ভেজাল সোনা নিয়ে তাঁর বচন, ‘গৌরী প্রসন্ন মজুমদার (সোনার হাতে সোনার কাঁকন গানখ্যাত) এখন বেঁচে থাকলে প্রিয়তমার সুন্দর হাতটাই অলংকার মনে করতেন, হাতের সোনার কাঁকনকে নয়।’ পরিবেশদূষণ নিয়ে তাঁর বঙ্কিম কটাক্ষ, ‘যে কোকিলটি পথ ভুলে রমনা পার্কের বনেদি গাছের শাখায় বসে প্রাণ উজাড় করে গেয়ে উঠল কুহু, কুহু—ও তো জানে না খানিকটা বিষ ওর গলাতেও জড়িয়ে গেছে!’

এর আগে মৃত্যুকে তিনি বারবার রুখে দিয়েছেন। গলব্লাডার, অ্যাপেনডিক্স ও হার্নিয়া অস্ত্রোপচারের মধ্য দিয়ে তাঁকে যেতে হয়েছে। ১৯৯৪ সালে ক্যানসারে আক্রান্ত হন। কলকাতার উডল্যান্ডস হাসপাতাল নাকি বলেই দিয়েছিল, ছয় সপ্তাহ বাঁচবেন, তাই তাঁকে তারা কেমোথেরাপি না দিয়েই ফেরত পাঠাল। আমেরিকার হাসপাতালে ৬টি কেমো কাজ দিল, স্প্লিনের টিউমারটারও অপসারণ ঘটল। কিন্তু পুনরায় ক্যানসারে আক্রান্তের আশঙ্কা থাকল, সেটা ঘোচাতে তাঁর পুত্রতুল্য জামাতা মিয়া নাইম হাবিবের টিস্যু নিয়ে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন হলো। ২০১৩ সালে হলো সফল ওপেন হার্ট সার্জারি। ২০১৮ সালের শুরু থেকেই অসুস্থ বোধ করছিলেন। কিন্তু বার্তাকক্ষের টান তাঁকে কিছু স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করাল। তাঁর অন্তিম ইচ্ছা ছিল বার্তাকক্ষেই যেন তাঁর মৃত্যু ঘটে। সেই ইচ্ছাটা এক অর্থে পূরণ হয়েছে। ২৮ জুলাই রাতে সমকাল–এ কাজের টেবিলে দুর্বল বোধ করায় উত্তরার বাসায় যান, পরদিন ল্যাবএইডে, সেখানে তাঁকে শেষবারের মতো দেখি। ৩ আগস্ট এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে সিঙ্গাপুরে যান। নিউমোনিয়া তাঁর ফুসফুসকে আক্রান্ত করেছিল, আর সেটাই কাল হলো।

তিনি প্রধান শিক্ষক ছিলেন। বিদ্যোৎসাহী ছিলেন। কিন্তু সাংবাদিকতায় পরিচয়টাই তাঁর বড়। তাঁর পেশাদারত্ব, কর্তব্যপরায়ণতা ও শ্রমশীলতা আমার মতো আরও অনেক অনুজকে মুগ্ধ ও ঋদ্ধ করেছে। তাঁর সংবাদ পরিবেশনার কৌশল, তাঁর লেখনশৈলী আমাদের সাহস ও শক্তি জুগিয়েছে। সংবাদকক্ষই ছিল তাঁর ধ্যানজ্ঞান। আপনি উত্তরা থাকেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি সহাস্যে বলতেন, উত্তরায় ঘুমাই। যে গোলাম সারওয়ার ৭৫ বছরের জীবনের মধ্যে পাঁচ দশকের বেশি সময় বার্তাকক্ষেই কাটিয়ে গেলেন, তাঁর মৃত্যু নেই। তিনি আমাদের নিত্যপ্রেরণা হয়ে থাকবেন।

উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি হতে ‘ভুয়া’ এনআইডি দেন তিনি!
                                  

ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি করা হয়েছে ছাত্রনেতা মো. ইব্রাহিমকে। গত ৩১ জুলাই তাঁকে সভাপতি করে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ছাত্রলীগের এই নেতা মহানগর উত্তরের সভাপতি পদে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্রের সঙ্গে যে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) দিয়েছেন, তা ভুয়া। মূলত নিজের বয়স ২৮ বছরের মধ্যে রাখতে গিয়ে তিনি নিজের প্রকৃত এনআইডি জমা না দিয়ে ‘ভুয়া’ পরিচয়পত্র জমা দিয়েছিলেন।

সংগঠনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এবার কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ পাওয়ার জন্য বয়সসীমা ছিল ২৭ বছর। পরে দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলনের দিন ছাত্রলীগের নেতা নির্বাচনের বয়স ১ বছর বাড়িয়ে ২৮ বছর করে দেন। কিন্তু ইব্রাহিমের প্রকৃত জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী সম্মেলনের দিন পর্যন্ত তাঁর বয়স ২৯ বছর পেরিয়ে যায়। এ কারণে বয়স ২৮ বছরের মধ্যে রাখতে ভুয়া এনআইডি জমা দেন ইব্রাহিম।

গত ১১-১২ মে ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলন হয়। এর প্রায় তিন মাস পর কেন্দ্রীয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয় গত ৩১ জুলাই। বয়সের বিষয়টি এবার কিছুটা শিথিল রাখা হয়েছিল। বয়সের কারণেই কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেছিল ছাত্রলীগের নির্বাচন কমিশন। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বয়স ২৮ বছর ৮ মাস এবং সভাপতির বয়স ২৮ বছর ৭ মাস হওয়ার কারণে তাঁদের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল।

মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহিম ছাত্রলীগের নেতা হতে যে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, সেখানে তাঁর ফরমের ক্রমিক নম্বর ২২। ফরমে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তাঁর নাম মো. ইব্রাহিম। বাবার নাম মো. ইউনুস আলী। মায়ের নাম মেহেরুন নেছা। ইব্রাহিমের জন্মতারিখ দেওয়া ২৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৯০। মনোনয়নপত্রে তিনি তাঁর নাম ঠিক রেখে বাবা ও মায়ের নামও ভুল দিয়েছেন। যে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বরটি মনোনয়নপত্রে দেওয়া হয়েছে, সেটির কোনো অস্তিত্বই নেই। মনোনয়নপত্রে দেওয়া ব্যক্তিগত পরিচয়ের পুরো বিষয়টি ছিল জালিয়াতি।

প্রকৃতপক্ষে মো. ইব্রাহিমের বাবার নাম মো. আদম আলী পাত্তর। মায়ের নাম শাহানারা আক্তার। তাঁর জন্ম ১ জানুয়ারি ১৯৮৯। এই জন্মতারিখ অনুযায়ী তাঁর বয়স ২৯ বছরের বেশি। এ বিষয়টি গোপন রাখতে তিনি মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন।

ছাত্রলীগের মনোনয়নপত্রে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র জমা দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মো. ইব্রাহিম। মনোনয়নপত্রে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র কেন জমা দিলেন—এ প্রশ্নের জবাব দেননি মো. ইব্রাহিম। তিনি বলেন, ‘সবকিছুই তো জানেন। বাদ দেন না বিষয়টা। একটা ভুল হয়ে গেছে।’ এখন এ নিয়ে কথা ওঠার কারণ বলতে গিয়ে ইব্রাহিম প্রথম আলোর কাছে দাবি করেন, দীর্ঘদিন থেকে রাজনীতি করেন। বড় পদ পাওয়ার পর অনেকে তাঁর ‘পেছনে’ লেগেছেন। এ কারণে অনেকে তাঁকে ‘বিব্রত’ করার চেষ্টা করছেন।

মো. ইব্রাহিম তাঁর শিক্ষাগত যোগ্যতার বিবরণে উল্লেখ করেন, তিনি নয়াখালী মাটিডাঙ্গা আলিম মাদ্রাসা থেকে দাখিল পাস করেছেন ২০০৪ সালে। ২০০৬ সালে মঠবাড়িয়া সরকারি কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করে ২০১০ সালে তিনি মিরপুর কলেজ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন। পরে মিরপুর কলেজ থেকেই তিনি ২০১১ সালে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন। বর্তমানে তিনি একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে পড়ালেখা করছেন বলেও উল্লেখ করেছেন।

ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলনে ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ছিলেন নুসরাত জাহান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘অভিযোগটি সম্পূর্ণ অমূলক। আমরা যখন যাচাই-বাছাই করেছি, তখন এ ধরনের কোনো বিষয় সামনে আসেনি। এলে তা বাতিল করে দিতাম। অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে আমরা সাত-আটটি ফরম বাতিল করে দিয়েছিলাম।’ নেতা নির্বাচিত হওয়ার পরে অনেকে ‘পেছনে’ লাগেন, তারই অংশ হিসেবে মো. ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে এই ‘অভিযোগ’ বলে তিনি দাবি করেন।

নাম প্রকাশ না করে নির্বাচন কমিশনের অপর এক সদস্য বলেন, ইব্রাহিমের জাতীয় পরিচয়পত্র যে ভুয়া, সেটি আমরা বুঝেছিলাম। কেননা তাঁর যে বয়স নেই, সেটা আগেই আমাদের জানা ছিল। তিনি এ-ও বলেন, ইব্রাহিমের জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে কমিশন কোনো প্রশ্ন তোলেনি, তাঁর ফরমও বাতিল করে

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ৪০০ স্পিডবোটের ২৭৫টিই অবৈধ
                                  

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ও মাঝিরকান্দি ঘাটে চলাচলকারী ৪০০ স্পিডবোটের মধ্যে ২৭৫টিরই নিবন্ধন নেই। প্রাকৃতিক দুর্যোগের মৌসুম বলে সন্ধ্যার পর পদ্মা নদীতে স্পিডবোট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। অথচ রাতেও কিছু স্পিডবোট চলাচল করছে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, মাওয়ার শিমুলিয়া ঘাট থেকে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কাঁঠালবাড়ি এবং শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মাঝিরকান্দিতে মোট ৪০০ স্পিডবোট চলাচল করে। এর মধ্যে ২৭৫টির নিবন্ধন নেই। বেশির ভাগ স্পিডবোটই ঝুঁকিপূর্ণ। কখনো মাঝনদীতে বন্ধ হয়ে যায়। অনেক স্পিডবোট রয়েছে, যেগুলো ঠিক কোন ডকইয়ার্ডে তৈরি হয়েছে, তা-ও জানা যায় না।

অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগ গত এপ্রিলে সূর্যাস্ত থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত স্পিডবোট চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। কিন্তু এক দিনের জন্যও এই নিষেধাজ্ঞা মানা হয়নি। গত সোমবার সন্ধ্যার পরও স্পিডবোট চলেছে। সরেজমিনে দেখা যায়, সন্ধ্যা সাতটার দিকে সাময়িক বন্ধ করা হয়। কিন্তু সাড়ে সাতটার দিকে আবার চালু করা হয়। অন্তত ৫০টি স্পিডবোট চলাচল করে।

শিমুলিয়া লঞ্চঘাটের পাশেই স্পিডবোট ঘাট। সেখানে মাইকে প্রচার করা হচ্ছিল, ‘যাত্রী ভাইয়েরা, স্পিডবোটে যাতায়াত করুন, ১০ মিনিটেই পদ্মা পার। সময় বাঁচান, নিশ্চিন্তে পদ্মা পার হোন।’ আবার কিছু যুবক যাত্রীদের উদ্দেশে বলছিলেন, ‘লঞ্চে গেলে এক ঘণ্টা লাগবে। বোটে জলদি চইলা যান।’

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ৩০টির মতো স্পিডবোট ঘাটে বাঁধা ছিল। সাইনবোর্ডে বড় বড় অক্ষরে লেখা আছে, বিভিন্ন বোটের অশ্বশক্তি অনুযায়ী যাত্রীধারণের তথ্য। এর মধ্যে ১১৫ অশ্বশক্তির বোটে ২৪ জন এবং সবচেয়ে কম ৪০ অশ্বশক্তির বোটে ১০ জন নেওয়ার কথা। কিন্তু প্রায় সবগুলো বোটে বেশি যাত্রী তোলা হচ্ছে।

স্পিডবোটগুলো কত অশ্বশক্তির? জানতে চাইলে ইজারাদারের লোকজন সঠিক তথ্য দিতে পারেননি। তবে তাঁরা দাবি করেন, সব স্পিডবোটই নিবন্ধিত।

একটি বোটে যাত্রী ভর্তি হলেই ছেড়ে যাচ্ছে। কিন্তু যাত্রীদের বেশির ভাগই লাইফ জ্যাকেট পরছে না। আবার কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে যে বোটগুলো আসছে, সেগুলোতেও সব যাত্রীর শরীরে লাইফ জ্যাকেট নেই। জানতে চাইলে ইজারাদারের তত্ত্বাবধায়ক ইলিয়াছ আলী বলেন, যাত্রীদের লাইফ জ্যাকেট দিলে তারা না পরে হয় রোদ ঠেকাতে মাথার ওপর দেয়, অথবা সেটা পেতে বসে।

লঞ্চঘাটে গিয়ে দেখা যায়, কিছু লঞ্চের পেছনে স্পিডবোট। একটি লঞ্চে উঠে দেখা যায়, স্পিডবোট থেকে যাত্রীদের দ্রুত পৌঁছে দেওয়া এবং টাকা কম নেওয়ার প্রলোভন দেখানো হচ্ছে। কয়েকজন যাত্রী ঝুঁকি নিয়ে স্পিডবোটে নেমেও যাচ্ছে।

সন্ধ্যার পরও এ ধরনের প্রলোভন আসে বলে কয়েকজন সচেতন যাত্রী জানান। নদী পার হয়ে বাসযোগে ফরিদপুরের ভাঙ্গা যাবেন যাত্রী শরাফত আলী। তিনি বলেন, তাড়া থাকায় তিনি নিজেও একবার এভাবে লঞ্চ থেকে নেমে স্পিডবোটে উঠেছিলেন। পথে বোট বন্ধ হয়ে যায়। আর ভাড়া কম নেওয়া হবে বলা হলেও নেওয়া হয়নি। আরেকজন যাত্রী অভিযোগ করেন, সন্ধ্যার পর স্পিডবোটে ভুয়া যাত্রী বসিয়ে রাখা হয়। এতে সাধারণ যাত্রীরা সাহস করে বোটে উঠে যায়। কিন্তু অনেক সময় মাঝনদীতে নিয়ে সাধারণ যাত্রীদের টাকাপয়সা ও মালামাল লুট করা হয়। যাত্রীকে নদীতে ফেলে দেওয়ার কথাও তিনি শুনেছেন বলে অভিযোগ করেন।

স্পিডবোটের ভাড়া ১৩০ টাকা হলেও গত ঈদুল ফিতরে ১৮০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে কিছু যাত্রী। ঈদুল আজহায়ও বেশি ভাড়া আদায়ের আশঙ্কা করছে তারা।

জানতে চাইলে শিমুলিয়া ঘাটের ইজারাদার ও মেদিনীমণ্ডল (মাওয়া) ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ হোসেন খান বলেন, বিষয়টি তাঁদের অজান্তে ঘটতে পারে। রাতে তিনি বলেন, সন্ধ্যায় ঘাট বন্ধ করে দিলেও দু-একটা স্পিডবোট চলাচল করতে পারে। তারা কথা শোনে না।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমোডর সৈয়দ আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘স্পিডবোটগুলোকে নিয়মশৃঙ্খলার আওতায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আগে মোটেই নিবন্ধন ছিল না, আমরা স্পিডবোটের মালিকদের কাছে গিয়ে বোটগুলো নিবন্ধনের অনুরোধ করে কিছুসংখ্যক নিবন্ধন করিয়েছি। বাকিগুলোকেও নিবন্ধনের আওতায় আনা হচ্ছে।’

শিমুলিয়া ঘাটের ইজারাদার আশরাফ হোসেন খান বলেন, তাঁরা যত দূর সম্ভব স্পিডবোটগুলো নিবন্ধন করছেন। তিনি বলেন, সব নিয়ম এপারে-ওপারে, কাঁঠালবাড়িতে কোনো বোট নিবন্ধন হয়নি। এ বিষয়ে জানতে কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ইজারাদার আবদুল হাই শিকদারের মুঠোফোনে কল দিলে তিনি ধরেননি।


   Page 1 of 4
     এক্সক্লুসিভ
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ: কৃষকরা বিপাকে
.............................................................................................
জোড়মল্লিকা - তেলিগ্রাম জলা দিয়ে গুরনাই নদীর পানি প্রবেশ: কৃষকরা বিপাকে
.............................................................................................
১ নম্বর সতর্ক সংকেত সাগরে , ঘূর্ণিঝড় আমফান আসতে পারে
.............................................................................................
কেরানীগঞ্জে কারখানায় ভয়াবহ আগুন
.............................................................................................
ইলিয়াস কাঞ্চন শাজাহান খানকে ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়েছেন
.............................................................................................
শেখ রাসেলের জন্মদিনকে “শিশু রক্ষা দিবস” পালনের দাবী জানালো : বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট
.............................................................................................
শতভাগ বিদ্যুতে আলোকিত কেরানীগঞ্জ
.............................................................................................
সুরমা পাড়ে পরিচ্ছন্নতায় তিন ব্রিটিশ এমপি
.............................................................................................
নিজের ফাঁসি চাইলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী
.............................................................................................
হোটেল বিলই ১৫০ কোটি টাকা
.............................................................................................
বিদেশি চ্যানেলে দেশীয় বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের নির্দেশ
.............................................................................................
তিমির সঙ্গে ফেরির ধাক্কা, আহত ৮০
.............................................................................................
কুতুবদিয়ায় ২২ থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি যৌথ সামরিক মহড়া
.............................................................................................
বেঁচে থাকবেন গোলাম সারওয়ার
.............................................................................................
উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি হতে ‘ভুয়া’ এনআইডি দেন তিনি!
.............................................................................................
শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ৪০০ স্পিডবোটের ২৭৫টিই অবৈধ
.............................................................................................
অতীত স্মৃতি রোমন্থনে অনাবিল সুখ
.............................................................................................
পল্টন মডেল থানার উদ্যোগে জনসচেতনতা মূলক উঠান বৈঠক
.............................................................................................
মানবাধিকার সংস্থা সিপিআরএস- এর নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
সারল্যের শক্তি: বরিশালের মনীষা আর রাজশাহীর মুরাদ
.............................................................................................
৩ সপ্তাহে ওজন কমল ১০৮ কেজি, ২৫ বছর পর উঠে বসলেন ইমান
.............................................................................................
ভাসমান গ্রাম!
.............................................................................................
সাপে মুগ্ধ হয়ে ৩৪ বার কামড় খেয়েও বেঁচে আছেন কিশোরী
.............................................................................................
বিড়ালের জন্য পাঁচতারা হোটেল!
.............................................................................................
চুরির দায়ে ইঁদুরের শাস্তি
.............................................................................................
৩৬ বছর বয়সে ওজন ৫০০ কেজি!
.............................................................................................
মায়ের গর্ভ থেকে দুই বার জন্ম নিয়েছে যে শিশু
.............................................................................................
বিয়ে ১০৭, বউ ৯৭
.............................................................................................
টাকার গাছ রাঙ্গামাটিতে !
.............................................................................................
মুরগির ছানাটি এখন পুলিশি হেফাজতে
.............................................................................................
ফল খেতে গাছের ডালে ছাগল
.............................................................................................
ঋণের টাকা শোধ করতে না পেরে সন্তান বিক্রি
.............................................................................................
আমার মৃত সন্তানের ছবি কিছুই বদলাতে পারেনি
.............................................................................................
একসঙ্গে চার নবজাতকের জন্ম
.............................................................................................
ঝুলে ঝুলেই বিয়ে
.............................................................................................
হাতিও চুলকায়
.............................................................................................
জোড়া লাগা শিশুর অস্ত্রোপচার সরাসরি সম্প্রচার
.............................................................................................
বিনা পয়সার যে খাবারটি আজীবন যৌবন ধরে রাখে, নতুন চুল গজায়!!
.............................................................................................
বাবা-মা মেয়ের পা ভেঙ্গেছেন ৪ মাসে ৩০০ বার
.............................................................................................
পদার্থবিজ্ঞানের বিশেষ পুরস্কার পেলেন বাংলাদেশের দুই বিজ্ঞানী
.............................................................................................
বিদ্যুৎ বিল যেভাবে কমানো যায়
.............................................................................................
বাড়িতেই হোভারবাইক উদ্ভাবন করলেন ফার্জ!
.............................................................................................
সেরা ১০ উক্তি প্রেম নিবেদনে
.............................................................................................
বিদ্যুৎ বিল কমানোর কিছু কৌশল
.............................................................................................
আউটডোর এলিভেটর বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু পর্বতমালা
.............................................................................................
সেলফি তুলতে গিয়ে দুই ঘন্টা পাথরচাপা
.............................................................................................
দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জে যে কোন সময় ধ্বসে পরতে পারে তিন তলা ভবন
.............................................................................................
ভয়াবহ খরার মুখে ভারতের ৩৩ কোটি মানুষ
.............................................................................................
ওদের চোখে বাংলাদেশ
.............................................................................................
দৈনিক বিশ্ব মানচিত্র পত্রিকার পক্ষ থেকে দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি: মো: হাবিবুর রহমান সিরাজ
আইন উপদেষ্টা : অ্যাড. কাজী নজিব উল্লাহ্ হিরু
সম্পাদক ও প্রকাশক : অ্যাডভোকেট মো: রাসেদ উদ্দিন
সহকারি সম্পাদক : বিশ্বজিৎ পাল
যুগ্ন সম্পাদক : মো: কামরুল হাসান রিপন
নির্বাহী সম্পাদক: মো: সিরাজুল ইসলাম
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : সাগর আহমেদ শাহীন

সম্পাদক কর্তৃক বি এস প্রিন্টিং প্রেস ৫২ / ২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, সূত্রাপুর ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও ৯৯ মতিঝিল , করিম চেম্বার ৭ম তলা , রুম নং-৭০২ , ঢাকা থেকে প্রকাশিত ।
মোবাইল: ০১৭২৬-৮৯৬২৮৯, ০১৬৮৪-২৯৪০৮০ Web: www.dailybishowmanchitra.com
Email: news@dailybishowmanchitra.com, rashedcprs@yahoo.com
    2015 @ All Right Reserved By dailybishowmanchitra.com

Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD